রাজনীতিতে প্রবেশের জল্পনার অবসান! যোগদান নিয়ে অবস্থান স্পষ্ট করলেন সৌরভ

আসন্ন একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে রাজ্য রাজনীতি রীতিমতো উত্তাল। একদিকে তৃণমূল দলে ভাঙ্গন ধরছে, অপরপক্ষে বঙ্গে ক্রমশি শক্তিশালী হয়ে উঠছে বিজেপি। এমতাবস্থায় ক্রিকেট দুনিয়ার মহারাজ সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের সঙ্গেও বিজেপি-যোগ খুঁজে পাচ্ছিলেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। রাজ্যপালের সঙ্গে তার সাক্ষাৎকার, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের সঙ্গে একই মঞ্চ ভাগ করে নেওয়া কার্যত সেই যোগসুত্র আরও দৃঢ় করছে।

তবে এ বিষয়ে “দাদা”র মতামত কি? তিনি কি আদেও রাজনীতির আঙিনায় আসতে ইচ্ছুক? এই প্রশ্নের কোনো সরাসরি জবাব “দাদা”র কাছ থেকে মিলছে না। তবে তার ঘনিষ্ঠ মহল থেকে যে আভাস মিলছে তা থেকে স্পষ্ট, “দাদা” এখনি রাজনীতিতে আসতে ইচ্ছুক নন। এদিকে তৃণমূলের কথায় “বহিরাগত” বিজেপি আসন্ন একুশের নির্বাচনে বাঙালি নেতা-নেত্রীদের উপরেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। সব মিলিয়ে রাজনৈতিক মহলে জল্পনা এখন তুঙ্গে।

তবে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের দীর্ঘদিনের পারিবারিক বন্ধু তথা সিপিআইএম নেতা অশোক ভট্টাচার্য সম্প্রতি দাদার সঙ্গে সাক্ষাৎকার করে এসে সোশ্যাল সাইটে যে তথ্য প্রকাশ করলেন তাতে জল্পনা কিছুটা হলেও নিরসন হয়েছে। সিপিআইএম নেতার কথামতো তিনি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে রাজনীতির প্রেক্ষাপটের সঙ্গে যুক্ত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। সাধারণ মানুষের কাছে তার যে ক্রিকেটারের ইমেজ রয়েছে, সেই ইমেজ বজায় রাখার পক্ষেই সওয়াল করেছেন অশোক ভট্টাচার্য।

তিনি বলেন, এদিন তিনি দীর্ঘক্ষন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এবং সৌরভ পত্নী ডোনা গঙ্গোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন। ক্রিকেট থেকে রাজনীতি, এদিন তাদের আলোচনার মূল বিষয়বস্তু ছিল। বিশেষত শিলিগুড়িতে ক্রিকেট খেলায় সবরকম সহযোগিতা করার আশ্বাস দিয়েছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। তার পাশাপাশি রাজনীতি নিয়ে নিজের অবস্থানও স্পষ্ট করেছেন সৌরভ। তিনি বলেছেন, “রাজনীতিতে আসবো, এ কথা তো কখনো বলিনি! রিপোর্টাররা এ বিষয়ে প্রশ্ন করলেও তার জবাব কখনো দিই না।”