বঙ্গ বিজেপির দা’য়ি’ত্ব নিজেদের হাতেই রা’খ’তে চায় RSS, জানুন বিস্তারিত

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির নেতৃত্ব সরাসরি স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ বা আরএসএসের অধীনেই থাকা উচিত। আরএসএস এর তরফ থেকে এমনটাই স্পষ্ট করা হয়েছে। স্বয়ং আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত বিজেপির জাতীয় সাধারণ সম্পাদক বি এল সন্তোষকে ইতিমধ্যে এই বার্তা পাঠিয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে। বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির হারের কারণ খুঁজে বার করার জন্য এতদিন পরীক্ষা নিরীক্ষা চালিয়েছে আরএসএস। এই নিয়ে কাটাছেঁড়ার এরপর এমনই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন তারা।

সঙ্ঘের দাবি, একুশের বিধানসভা নির্বাচনের পূর্বে তৃণমূল থেকে আগত সকল নেতাকেই দলে নেওয়াটা একেবারেই যুক্তিসংগত কাজ হয়নি। ১৪৮ টি আসনে তৃণমূল ত্যাগীদের টিকিট দেওয়া হয়েছিল একুশের বিধানসভা নির্বাচনে। আর এতেই কার্যত উল্টো প্রভাব পড়েছে ভোটবাক্সে এমনটাই দাবি সংঘের। বিজেপি আদি কর্মীরা এতে মনোক্ষুন্ন হয়েছিলেন। এদিকে আবার তৃণমূল ত্যাগীরাও নির্বাচনে হেরে গিয়েছেন।

আরএসএসের প্রধান লক্ষ্য, এই মুহূর্তে বঙ্গ বিজেপিকে ঢেলে সাজাবেন আরএসএস প্রধানরা। বাংলায় বিজেপিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য সঙ্ঘের বা সঙ্ঘ ঘনিষ্ঠ সদস্যদের হাতেই বিজেপির দায় ভার তুলে দিতে চান সংঘের প্রধানরা। এই মর্মে প্রস্তুতিও ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে। বিজেপির জাতীয় সাধারণ সম্পাদক বি এল সন্তোষকে এই মর্মে বার্তা পাঠিয়েছেন আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত।

আরএসএস-এর মুখপত্র স্বস্তিকার প্রাক্তন সম্পাদক রন্তিদেব সেনগুপ্তের দাবি, তৃণমূল রীতিমতো পরিকল্পনা করেই বিজেপিকে হারিয়েছে। তৃণমূলের সেই ষড়যন্ত্র বিজেপি বিন্দুমাত্র টের পায়নি। নির্বাচনের আগে তৃণমূল তাদের শয়ে শয়ে কর্মী সদস্যদের বিজেপিতে পাঠিয়েছিল ইচ্ছে করেই! এমনটাই মনে করছেন সংঘের প্রধানরা। তারাই সংঘের সমস্ত পরিকল্পনা তৃণমূল শিবিরে পাচার করেছে, বিরোধী শক্তির বিরুদ্ধে এমন গুরুতর অভিযোগ তুলছেন সংঘের সদস্যরা।