ব্যাপক ক্ষতির মুখে রেস্তেরা বিজনেস, কেন্দ্র নজর এড়িয়ে গেলে বন্ধ হয়ে যাবে 40 শতাংশ রেস্তেরা

কেন্দ্র সরকার দ্রুত কোনো আর্থিক সাহায্য ঘোষণা না করলে দেশের প্রতি ১০টি রেস্তোরাঁ পিছু চারটি রেস্তোরাঁ বন্ধ হয়ে যাবে। লকডাউনের আগে দেশে রেস্তোরাঁ ব্যবসার মোট পরিমাণ ছিল ৪ লক্ষ কোটি টাকা এবং ৭০ লক্ষ ব্যক্তি কাজ করতেন। ন্যাশনাল রেস্তোরাঁ অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়া দাবি করেছে, লকডাউনের জেরে ফুড ডেলিভারি ব্যবসা প্রায় ৭০ শতাংশ কমে গিয়েছে।

লকডাউন উঠে গেলেও দীর্ঘদিন রেস্তোরাঁয় খেতে যাওয়া বা রেস্তোরাঁ থেকে খাবার অর্ডার করার প্রবণতা আগের মত থাকবেনা। বিভিন্ন সংস্থায় কর্মী ছাঁটাই এবং বেতন কমানোর কারণে লোকে এখন আবশ্যিক নয় এমন খরচ করতে ভয় পাবে। এরফলে এই রেস্তোরাঁ প্রতিষ্ঠানগুলির পুনরায় দাঁড়াতে অনেক সময় লাগবে।

দেশের বিভিন্ন শহরে বেশ কিছু রেস্তোরাঁ যখন একে একে ঝাঁপ বন্ধ করার পরিকল্পনা করছে, সেই সময়ে কিছু উদ্যোগপতি ব্যবসার নতুন উপায় খুঁজে বের করেছেন। যেমন প্যাকেজড ফুডের ব্যবসা, ডু-ইট-ইয়োরসেল্ফ মিল কিট ডেলিভারি করা, খাবারের নতুন মেনু, এমনকী মুদিখানার জিনিস বিক্রি করা ইত্যাদি।

বড় ব্র্যান্ডের রেস্টুরেন্ট চেইনগুলিও ব্যবসা টিকিয়ে রাখার জন্য অন্য উপায় খুঁজছে। ওয়াও মোমো, ডমিনোজের, মাসকিউ, বম্বে ক্যান্টিনের মতো ফাইন ডাইনিং ব্রান্ড এবং অ্যাকর, হিল্টন বা কনরাডের মতো হোটেল চেইনগুলি এখন হোম ডেলিভারির ব্যবসায় নামছে। ফাসোস এবং বেহরুজ বিরিয়ানি রেস্টুরেন্ট চেইনের মালিক সংস্থা রেবেল ফুডস ডু-ইট-ইয়োরসেল্ফ মিল কিট ডেলিভারি করার কথা ভাবছে।

সব খবর সরাসরি পড়তে আমাদের WhatsApp  Telegram  Facebook Group যুক্ত হতে ক্লিক করুন