নথিভুক্ত করা ঠিকানা ভুয়ো, খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না লন্ডন থেকে কলকাতা ফেরত ২০ যাত্রী

লন্ডন ফেরত বিমান যাত্রীদের মধ্যে যে ৫৭ জন নতুন স্ট্রেইনের করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের আবহে কলকাতায় এসে পৌঁছেছেন তাদের মধ্য থেকে অন্তত ২০ জনের কোনো হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। এই কুড়িজন বিমানযাত্রী বিমানবন্দরে নামার সময় যে ঠিকানা প্রদান করেছিলেন তা ভুয়ো বলেই জানা যাচ্ছে। এদের নিয়ে আবারও নতুন করে চিন্তার ভাঁজ পড়ছে কলকাতা পুর-প্রশাসনের অধিকর্তাদের কপালে।

উল্লেখ্য, ব্রিটেনে আগের করোনাভাইরাসের তুলনায় ৭০ শতাংশ বেশি মারাত্মক ভাইরাসের উদ্ভব ঘটেছে। ফলে এমতাবস্থায় যারা ব্রিটেন থেকে ভারতে ফিরেছেন তাদের প্রত্যেকেরই করোনা টেস্ট করা বাধ্যতামূলক, নতুবা তাদের থেকেই নতুন করে করোনার প্রাদুর্ভাব সারাদেশে ছড়িয়ে পড়তে পারে। এমতাবস্থায় ৫৭ জনের মধ্য থেকে ৩৭ জনকে বিমানবন্দরে নথিভূক্ত ঠিকানা থেকে খুঁজে পাওয়া গিয়েছে।

এদের প্রত্যেকেরই লালারসের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানো হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। এদের মধ্যে আপাতত একজনের শরীরে নতুন করোনা স্ট্রেইন পাওয়া গিয়েছে। কিন্তু বাকি যে কুড়ি জনকে এখনো খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না তাদের মধ্যে যদি একজনও আক্রান্ত হয়ে থাকেন তাহলে তার থেকেই সারা শহরে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বাকিদের খোঁজে তাই নাজেহাল প্রশাসন।

পুরকর্তাদের দাবি, এই কুড়িজন বিমানযাত্রীই বিমানবন্দরে নিজেদের ভুয়ো ঠিকানা দিয়েছেন। যে কারণে বিগত চার দিন ধরে তল্লাশি চালিয়েও তাদের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। কেউ নিউ আলিপুরের এমন এক জায়গার ঠিকানা দিয়েছেন যেখানে একটি কারখানা রয়েছে, যে কারখানার মালিক বা কর্মীদের সঙ্গে যাত্রীর কোনো সম্পর্কই নেই। কেউ আবার উত্তর কলকাতার একটি বহুতল আবাসনের ঠিকানা দিয়েছেন, যেখানে আদেও কোনো আবাসনের চিহ্নই মেলেনি। অতএব, এই কুড়ি জন নিরুদিষ্ট সন্দেহজনক যাত্রীকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভুগছেন কলকাতা পুর প্রশাসন।