রিসাইক্লিং, ভেন্ডিং মেশিনে অপ্রয়োজনীয় জিনিস রাখলেই বের হয়ে আসছে কড়কড়ে টাকা, ভিডিও ভাইরাল

রিসাইক্লিং, তথা অপ্রয়োজনীয় অথবা অব্যবহার্য বস্তুর পুনর্ব্যবহার। পরিবেশ সুরক্ষার্থে এবং আর্থিক সাশ্রয়ের নিরিখে পৃথিবীর প্রায় প্রতিটি দেশেই রি-সাইক্লিংয়ের কমবেশি গ্রহণযোগ্যতা আছে। ভারতের মতো দেশে সাধারণত অব্যবহার্য বস্তুর শেষ ঠিকানা হয় আবর্জনা স্তুপ। এতে যেমন পরিবেশ দূষিত হয়, তেমনই পরবর্তী ক্ষেত্রে অনেক পুনর্ব্যবহারযোগ্য জিনিস পুনরায় ব্যবহার করার আর কোনো আশা থাকে না।

তবে সম্প্রতি বিদেশে এমন একটি ভেন্ডিং মেশিন তৈরি করা হয়েছে যে মেশিনে অব্যবহার্য জিনিসের বদলে কড়কড়ে টাকা পৌঁছে যাচ্ছে গ্রাহকের হাতে। এ রকমই একটি ভিডিও সম্প্রতি সোশ্যাল সাইটে পোস্ট করা হয়েছে। ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে এক ব্যক্তি সোডার একটি ক্যান ভেন্ডিং মেশিনের নির্দিষ্ট জায়গায় ঢুকিয়ে দিলেন। এরপর তিনি তার প্রয়োজনীয় অর্থ অপর একটি নির্দিষ্ট কি বোর্ডে টাইপ করে দিলেন। ব্যাস, সোডার ক্যানের বদলে তার হাতে সেই অর্থ চলে এলো।

প্রযুক্তির এমন অভিনব ব্যবহার দেখে স্বভাবতই নেট দুনিয়ায় রীতিমতো শোরগোল পড়ে গিয়েছে। অনেকেই এমন অভিনব ভেন্ডিং মেশিন বানানোর উদ্যোগকে সমর্থন করছেন। ভেন্ডিং মেশিনে সাধারণত টাকার বদলে প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বের হতে দেখা যায়। তবে এ ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ উল্টোটা ঘটছে। এতে সাধারণের মধ্যে জিনিস ক্রয়ের পর অব্যবহার্য অংশ যেমন প্লাস্টিকের মোড়ক, ক্যান, কাগজের মোড়ক নির্দিষ্ট স্থানেই ফেলার বার্তা পৌঁছচ্ছে বলে মনে করছেন নেট নাগরিকরা। বিশ্বের প্রায় প্রতিটি প্রান্তেই এমন ভেন্ডিং মেশিন থাকা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বলে মনে করছেন নেটাগরিকরা।