ভালোবাসার ব’ন্ধ’নে আ’ব’দ্ধ থাকতে ১২৩ দি’ন হাতকড়া বেঁ’ধে রে’ক’র্ড যুগলের! এরপর যা হলো

বর্তমান পরিস্থিতিতে যে কোনো সম্পর্ককে টিকিয়ে রাখাই একটা বড়সড় চ্যালেঞ্জ। বিশেষত স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের মধ্যে মনোমালিন্য, ঝগড়া-বিবাদ, মাত্রা ছাড়িয়ে গেলে তারা একে অপরের থেকে আলাদা হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। পাশ্চাত্যের পাশাপাশি প্রাচ্যেও এমনটা আকছার ঘটছে। সেই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে ১২৩ দিন একে অপরের সঙ্গে হাতকড়া বেঁধে থাকাটা কিছু কম বড় চ্যালেঞ্জ ছিল না।

এই চ্যালেঞ্জ নিয়েছিলেন ইউক্রেনের এক দম্পতি। তারা একে অপরের সঙ্গে হাতকড়া বেঁধে প্রায় ১২৩ দিন একসঙ্গে কাটিয়েছেন। তারা একই সঙ্গে সমস্ত কাজ করেছেন। খাওয়া-দাওয়া থেকে শুরু করে নিত্তনৈমিত্তিক যাবতীয় কাজে তারা এই অবস্থাতেই সম্পন্ন করেছেন। তারা দেখতে চেয়েছিলেন যে তারা একে অপরের সঙ্গে হাতকড়া বেঁধে বাকি জীবনটা কাটাতে পারেন কিনা!

ভিক্টোরিয়া পুসতোভিতোভা (২৯) এবং আলেকজান্ডার কাডলে (৩৩) ইউক্রেনের খারকিভের বাসিন্দা। চলতি বছরের ভ্যালেন্টাইনস ডে-তে কিয়েভের ইউনিটি মনুমেন্টের সামনে দুজনে একসঙ্গে থাকার পণ করে হাতকড়া পরে নেন। তারপর থেকে তারা এই অবস্থাতেই ছিলেন। ১২৩ দিন এইভাবে কাটানোর পর যেদিন তারা প্রথম হাতকড়াটি খোলেন সেদিন অবশ্য তারা একে অপরের থেকে আলাদা হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন!

যেদিন তারা এইভাবে হাতকড়া বেঁধে একসঙ্গে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন সেদিন থেকেই কার্যত সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের ফলোয়ার হু হু করে বাড়তে থাকে। তারা রাতারাতিই সেলিব্রিটি হয়ে গিয়েছিলেন। এখন যখন তারা পরস্পর থেকে আলাদা হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তখন কার্যত তাদের ফলোয়ারদের মন ভীষণ খারাপ। তবে একে অপরের থেকে আলাদা হতে পেরে ভিক্টোরিয়া এবং আলেকজান্ডার কিন্তু বেজায় খুশি। সে কথাটিও তারা জানিয়েছেন ফলোয়ারদের।