গেরুয়া ঝড় তুলতে রথযাত্রা, থাকবেন অমিত-নাড্ডা, অনুমতি পেতে নবান্নের দিকে তাকিয়ে রাজ্য বিজেপি

আসন্ন একুশের বিধানসভা নির্বাচনে বঙ্গে পদ্ম ফুল ফোটাতে মরিয়া প্রচেষ্টা চালাচ্ছে গেরুয়া শিবির। বাংলায় ভোট প্রচারের উদ্দেশ্যে এবার আর কোনো রাজনৈতিক সমাবেশ নয়, ধর্মীয় আবেগে উস্কানি দেওয়ার পথেই হাঁটছে বিজেপি। বাংলায় ভোটের প্রচারে বিজেপির নতুন কর্মসূচি “রথযাত্রা”! রথযাত্রা করেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে প্রচার চালাতে চাইছে বিজেপি। অবশ্য এর নাম পরিবর্তন করে “পরিবর্তন যাত্রা” রাখা হবে বলে জানানো হচ্ছে।

“পরিবর্তন যাত্রা”র চূড়ান্ত পরিকল্পনা গ্রহণ করে ফেলেছে বঙ্গ বিজেপি শিবির। এখন শুধু নবান্নের অনুমোদন বাকি। বঙ্গ বিজেপি শিবিরের তরফ থেকে তাই এ বিষয়ে নবান্নের অনুমতি প্রদানের জন্য সরাসরি রাজ্যের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি পাঠানো হয়েছে। যদিও সেই চিঠির উত্তর এখনো মেলেনি বলেই জানা যাচ্ছে। বিজেপির শিবিরের পরিকল্পনা অনুসারে আগামী ৬ই ফেব্রুয়ারি থেকে “পরিবর্তন যাত্রা”র সূচনা করা হবে।

এই পরিকল্পনা বাস্তবায়িত করতে সারা রাজ্যকে পাঁচটি সাংগঠনিক জোনে ভাগ করে নেওয়া হয়েছে। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার নেতৃত্বে নবদ্বীপ থেকেই প্রথম রথযাত্রা বের করতে চাইছে বঙ্গ বিজেপি শিবির। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বৈষ্ণব ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে সাড়া ফেলতে “চৈতন্যচেতনা রথ” নামে নবদ্বীপের রথ যাত্রার আয়োজন করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে বিজেপি।

নদিয়া থেকে শুরু হয়ে মুর্শিদাবাদ, বনগাঁ, বসিরহাট এবং বারাসাত হয়ে ওই রথযাত্রা ব্যারাকপুরে গিয়ে শেষ হবে বলে জানানো হয়েছে। এরপর ৮ই ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের নেতৃত্বে একযোগে কোচবিহার এবং গঙ্গাসাগর থেকে দুটি রথ যাত্রার সূচনা হবে। ৯ই ফেব্রুয়ারি রাঢ়বঙ্গ জোনের ঝাড়গ্রাম থেকে চতুর্থ রথযাত্রা শুরু হয়ে হাওড়ার বেলুড়মঠে গিয়ে শেষ হবে। ওইদিনই বীরভূমের তারাপীঠ থেকে পঞ্চম রথযাত্রা শুরু হয়ে পুরুলিয়া পর্যন্ত গিয়ে থামবে।