বৃষ্টির মধ্য দিয়েই রাজ্যে ঢুকবে শীত, উত্তর-পূর্ব ভারতে ঘন কুয়াশার সতর্কতা জারি

নভেম্বর মাসের শুরু থেকেই দেশে শীতের আমেজ আসতে শুরু করেছে। তবে আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে খবর, বাংলায় জাঁকিয়ে শীত পড়তে এখনো বেশ কিছু দিন দেরি আছে। তাই হাড় কাঁপানো ঠান্ডা অনুভব করতে আর কিছুদিন ধৈর্য্য রাখতেই হবে। আপাতত, শীতের হালকা আমেজ অনুভব করছেন বঙ্গবাসী। কলকাতা শহরের তাপমাত্রার পারদ এখনো উপরের দিকে চড়ে আছে। হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, আগামী সপ্তাহে তাপমাত্রার পারদ নিচের দিকে নামতে পারে।

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই ভারতের উপর দিয়ে এক দফা পশ্চিমী ঝঞ্জা বয়ে গিয়েছে। যার প্রভাবে শীতের শিরশিরানি বেশ অনুভব করা যাচ্ছে। আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে খবর, আরো একদফা পশ্চিমী ঝঞ্জা ভারতে প্রবেশ করতে চলেছে। তবে বাংলায় মানুষজনকে বেশ খানিকটা নিরাশ করেই হাওয়া অফিস জানাচ্ছে, এই দ্বিতীয় দফার পশ্চিমী ঝঞ্ঝার প্রভাব পড়বে উত্তর-পশ্চিম ভারতে। পশ্চিমবঙ্গে এর কোনো প্রভাব পড়ছে না। কাজেই এখনই পশ্চিমবঙ্গে শীতের প্রবেশের কোনো সম্ভাবনা নেই।

তবে নিম্নচাপের জেরে বঙ্গে বৃষ্টিপাতের প্রবল সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। উত্তরবঙ্গের মেঘলা আকাশের পাশাপাশি হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা জারি করেছে মৌসম বিভাগ। উত্তরবঙ্গের পাশাপাশি দক্ষিণবঙ্গেও আগামী সপ্তাহের শুক্রবার থেকে হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। এদিকে পশ্চিমী ঝঞ্ঝার প্রভাবে উত্তর-পশ্চিম ভারতের রাজ্যগুলিতে তাপমাত্রা ৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস পর্যন্ত নেমে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আকাশ মেঘলা থাকার দরুন দক্ষিণবঙ্গে এ কদিন দিনের বেলায় তাপমাত্রা স্বাভাবিকের উপরেই থাকবে। শুক্রবার উত্তরবঙ্গের কয়েকটি এলাকায় ছিটেফোঁটা বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। তবে আসাম, মেঘালয়, মনিপুর সহ উত্তর পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলিতে আগামী দুদিন ঘন কুয়াশার সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে। এদিকে আরব সাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের দরুন দক্ষিণ ভারতের রাজ্যগুলিতে যেমন তামিলনাডু, কেরালা, লাক্ষাদ্বীপ, কর্ণাটক উপকূলে বৃষ্টিপাতের সতর্কবার্তা দিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর।