পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত ক্লাসে আমূল পরিবর্তন, আগামী সপ্তাহেই শুরুর পরিকল্পনা

করোনা মহামারীর প্রকোপে লকডাউনের জেরে দীর্ঘ পাঁচ মাস ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলি বন্ধ রয়েছে। তবে টেলিফোনের মাধ্যমে নবম এবং দশম শ্রেণীর ক্লাস নিচ্ছিলেন শিক্ষক শিক্ষিকারা। এবার থেকে, পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণির পড়ুয়াদের জন্যেও এভাবেই টেলিফোনের মাধ্যমে ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য স্কুল শিক্ষা দপ্তর। ইতিমধ্যেই, শিক্ষক-শিক্ষিকাদের এই সংক্রান্ত ট্রেনিং দেওয়ার পর্ব শেষ, এবার আগামী সপ্তাহ থেকেই টেলিফোনে ক্লাস নেবেন শিক্ষক-শিক্ষিকারা।

উল্লেখ্য মহামারীর জেরে, রাজ্যের সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও, স্কুলের তরফ থেকে অনলাইন ক্লাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে, যদি স্মার্টফোন বা ইন্টারনেট পরিষেবা নেই তাদের জন্য বিগত এক মাস ধরে টেলিফোনের মাধ্যমেই শিক্ষা প্রদান করে চলেছেন শিক্ষক-শিক্ষিকারা। এবার এই পরিষেবার আওতায় পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণীর পড়ুয়াদেরও আনতে চলেছে রাজ্য।

স্কুল শিক্ষা দপ্তর সূত্রে খবর, এই পরিকল্পনা বাস্তবায়িত করতে ইতিমধ্যেই রাজ্যের প্রায় তিন হাজারেরও বেশি শিক্ষক-শিক্ষিকাকে বিশেষ ট্রেনিং দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি, স্কুল শিক্ষা দপ্তরের আধিকারিকরা টেলি কলিংয়ের জন্য শীঘ্রই একটি হেল্পলাইন নম্বর চালু করতে চলেছেন। রাজ্য সরকার সূত্রে খবর, বিগত প্রায় এক মাস ধরে প্রতিদিন গড়ে অন্তত পক্ষে নবম ও দশম শ্রেণীর কয়েক হাজার পড়ুয়া টেলিফোনের মাধ্যমে শিক্ষা লাভ করছেন।

এবার থেকে পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণীর পড়ুয়াদেরও এভাবেই শিক্ষাদান করা হবে। শিক্ষক-শিক্ষিকাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, স্কুল খোলা থাকলে আগস্ট মাসে পাঠ্য বিষয়ের উপর যেভাবে ক্লাস নিতেন তারা, ঠিক সেভাবেই টেলিফোনের মাধ্যমে ক্লাস নিতে হবে। উল্লেখ্য, রাজ্যে করোনার যা পরিস্থিতি, তাতে আগামী অক্টোবর মাস অব্দি স্কুল খোলা যাবে কিনা সে সম্পর্কে সন্দেহ রয়েছে। তাই এবার থেকে টেলিফোনের মাধ্যমেই নিচু শ্রেণীর পড়ুয়াদের শিক্ষা প্রদান করতে চাইছে রাজ্য।