খাবারে হলুদের উপর লাগান লাগাম, নয়তো এই রোগের প্রকোপে হতে পারে বড়ো বিপদ

মহামারীর সঙ্গে মোকাবিলা করার জন্য ডাক্তার পরামর্শ দিচ্ছেন প্রতিদিন দুধের সাথে এক চামচ হলুদ মিশিয়ে খেতে। কিন্তু সব জিনিস যেমন অতিরিক্ত ভালো নয়, তেমনি অতিরিক্ত হলুদ খাওয়া কখনো উচিৎ নয়। তাই যাদের রক্ত তঞ্চনে সমস্যা রয়েছে তারা যতটা সম্ভব হলুদ এড়িয়ে চলুন। হলুদ অনেক সময় ক্যালসিয়াম অক্সালেট এর হজমে বাধা হয়ে দাঁড়ায়।এই হজম না হওয়া ক্যালসিয়াম অক্সালেট জমে জমে পরবর্তীকালে কিডনিতে পাথর সৃষ্টি করতে পারে।

দীর্ঘদিন ধরে যদি আপনি অতিরিক্ত হলুদ সেবন করেন,তাহলে আপনার ডায়রিয়া, হজমের সমস্যা, গা বমি বমি ভাব এর মত অনেক কিছু শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে।হলুদ থেকে এলার্জি হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়। এলার্জি থেকে ত্বকে ছোট ছোট দানা দানা দেখা দিতে পারে আপনার।সম্প্রতি বেশ কয়েকটি গবেষণা থেকে জানা গিয়েছে যে, অতিরিক্ত মাত্রায় হলুদ খেলে তা নানা রকমের ওষুধের কাজে বাধা হয়ে দাঁড়ায়।

বিজ্ঞানীরা হলুদে থাকা কারকিউমিন কে অস্থায়ী, প্রতিক্রিয়াশীল যৌগ বলে আখ্যা দিয়েছেন।এই কারণেই অ্যাসপিরিন, ওয়ারফারিন এবং কিছু স্টিকার এর কার্যক্ষমতা কমিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে হলুদ।ঠিক এই কারণেই যথাসম্ভব কম পরিমাণে হলুদ খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। বিশেষত কাঁচা হলুদ যথাসম্ভব এড়িয়ে চলার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন তারা।