রেশন ব্যবস্থায় বড় পরিবর্তনের সম্ভাবনা, কড়া পদক্ষেপ নিতে চলেছে রাজ্য

এবার মৃত ব্যক্তিদের রেশন কার্ড বাতিল করার জন্য এক নতুন পদক্ষেপ নিতে চলেছে রাজ্য সরকার। প্রশাসনিক সূত্রে খবর, রেশন গ্রাহকের মৃত্যু হলেও সেই খবর রাজ্য সরকারের খাদ্য দপ্তরে পাঠানো হচ্ছে না। ফলে গ্রাহকের মৃত্যু হলেও তার জন্য খাদ্য বরাদ্দ করে চলেছে সরকার। এ ফলে সরকারের অতিরিক্ত ব্যয় হচ্ছে। বিশেষ করে করোনা মহামারীর কারণে বিগত পাঁচ মাস ধরে রাজ্যবাসীকে রেশনে বিনামূল্যে চাল গম দিচ্ছে রাজ্য। তবে গ্রাহকদের মধ্যে বেশ কয়েকজন মৃত ব্যক্তির নাম রয়েছে। রাজ্যের কাছে সঠিক খবর না পৌঁছানোর জন্য, তাদের জন্যেও খাদ্য বরাদ্দ করতে হচ্ছে।

এই সমস্যার সমাধানের জন্য ইতিমধ্যেই রাজ্যের পৌরসভাগুলির সাহায্য নিয়ে মৃত রেশন গ্রাহকদের খুঁজে বের করার প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছে রাজ্য সরকার। এবার স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফ থেকেও মৃত ব্যক্তির তথ্য নেওয়া হবে বলে জানা গেছে। রাজ্য খাদ্য দপ্তর সূত্রে খবর, প্রত্যেক জেলায় অবস্থিত স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে সেই এলাকার মৃত ব্যক্তির তালিকা নেওয়া হবে। এরপর সেই তালিকা অনুযায়ী একদফা ফিজিক্যাল ভেরিফিকেশন চালাবে রাজ্য। তারপর মৃত ব্যক্তির চূড়ান্ত তালিকা প্রস্তুত করা হবে।

এরপর মৃত ব্যক্তির তালিকা অনলাইনে নথিভুক্ত করে, প্রত্যেক মৃত রেশন গ্রাহকের রেশন কার্ড অনলাইনে বাতিল করে দেওয়া হবে। ফলে রেশন নিয়ে কারচুপি বন্ধ হবে। উল্লেখ্য বিগত বেশ কয়েক মাস ধরেই মৃত রেশন গ্রাহকদের চিহ্নিত করার কাজ শুরু করে দিয়েছে রাজ্য সরকার। খাদ্য দপ্তর সূত্রে খবর, পরিবারের কোনো সদস্যের মৃত্যু হলেও পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের উচিত খাদ্য দপ্তর এর ৭ নম্বর ফর্ম পূরণ করে খাদ্য দপ্তরে জমা দেওয়া। কিন্তু অনেকেই তা করেন না, বা বেশ কিছুদিন দেরি করে সরকারি দপ্তরে খবর পাঠানো হয়।

কিন্তু রাজ্যকে মৃত ব্যক্তির জন্য রেশনের বন্দোবস্ত করতে হয়। তবে বর্তমানে বিভিন্ন জায়গার পুরসভা এবং পঞ্চায়েত মৃত ব্যক্তির ডেথ সার্টিফিকেট ইস্যু করার আগে রেশন কার্ড বাতিল করার নথি চাইছে। কিন্তু অনেক পুরসভা বা পঞ্চায়েত তা মেনে চলছে না। ফলে রাজের কাছে তথ্য পৌঁছতে দেরি হচ্ছে। এদিকে করোনা মহামারীর মধ্যে বিগত পাঁচ মাস ধরে রাজ্য সরকারের কাছে মৃত গ্রাহকের কোনো তথ্যই এসে পৌঁছাচ্ছে না বলে জানা গেছে। ফলে, এ বিষয়ে আরো কড়া পদক্ষেপ নিতে চলেছে রাজ্য সরকার।