মধুচন্দ্রিমার রাতে স্বামী ঠিক কি করেছিলো, এতদিনে সকলকে জানালেন পুনম পান্ডে

মধুচন্দ্রিমায় সুখকর মুহূর্ত এর বদলে সম্পর্ক ভাঙ্গার উপক্রম হয়েছে পুনম পান্ডে ও স্যাম বম্বের সম্পর্ক। হানিমুনের মাঝেই স্বামী স্বামীর বিরুদ্ধে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ তুললেন অভিনেত্রী পুনম। এই অভিযোগের কারণে গোয়া পুলিশ পুনমের স্বামী স্বামী গ্রেপ্তার করে। যদিও এখন তিনি জামিনে ছাড়া পেয়েছেন কিন্তু মামলার এখনো আসামি হয়ে রয়েছেন। কিসের জন্য শ্যাম কে গ্রেপ্তার করে পুলিশ? কি ঘটানো হয়েছিল সেদিন কোনো পুনমের সঙ্গে? এক সাক্ষাৎকারে বিস্তারিতভাবে জানালে অভিনেত্রী।

দেড় বছর ধরে তিনি শ্যামের সঙ্গে প্রনয়ের সম্পর্কে আবদ্ধ ছিলেন। শুরু থেকেই পুনমের ওপর অত্যাচার করত শ্যাম। বিয়ের পর সব ঠিক হয়ে যাবে ভেবে 11 সেপ্টেম্বর তারা প্রেমিক-প্রেমিকা থেকে স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কে আবদ্ধ হয়। তারপর তারা মধুচন্দ্রিমায় যায় গোয়ায়। মধুচন্দ্রিমার মধ্যে একদিন রাত্রে শ্যামের অত্যাচার পুনমের ওপর চরম আকার ধারণ করে। হোটেলের কর্মীরা তাদের চিৎকার চেঁচামেচি শুনে গোয়া পুলিশকে খবর দেয়। শ্যাম নাকি প্রচণ্ড মারধোর করছিল পুনমকে। স্বামীর মারধরের জন্য পুনমের ব্রেন হেমারেজ হয়েছে। আপাতত তিনি এখন সুস্থ আছেন। তবে এই দুঃস্বপ্নের বিবাহিত জীবন থেকে তিনি বেরিয়ে আসতে চান।

খবর পাওয়া যায় স্বামীর সম্পত্তির লোভে নাকি পুনম তাকে বিয়ে করে। এই কথাটি শোনার পর পুনাম খুবই আঘাত পান। তখন অভিনেত্রী জানান তিনি নন বরং শ্যাম তার সম্পত্তির লোভে তাকে বিয়ে করেছে। তার ভিডিও বিক্রি করে সেই অর্থ উপার্জন করে। এখন পুনমের কাছে কান্নাকাটি করছে অভিযোগ তুলে নেওয়ার জন্য। কিন্তু পুনম কোনভাবেই এই সম্পর্কে জড়িয়ে থাকতে চায় না সে আবার সিঙ্গেল মোডে ফিরতে চায়।