মানুষকে বিশ্বাস করে ঠকতে হলো, মাংসের লোভ দেখিয়ে কুকুরকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা যুবকের

একের পর এক প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে মানুষ। প্রকৃতির রোষের মুখে পড়তে হচ্ছে লক্ষ লক্ষ মানবজাতিকে। আশ্চর্যের বিষয় এই মহামারীতে একমাত্র সংক্রমিত হচ্ছে মানুষ। দীর্ঘদিন অন্যান্য জীবনের ওপর অত্যাচারের ফলস্বরূপ আজ ঘর বন্দী হয়ে রয়েছে গোটা মানবজাতি। এরপরেও কি এতোটুকু লজ্জা হয়েছে তার? একের পর এক পশু হত্যার মতো নৃশংস কাজে লিপ্ত হচ্ছে মানুষ।মানুষ হয়তো তার অন্তিম মুহূর্তের সামনেই দাঁড়িয়ে আছে। না হলে এতটা নিশংস হতে পারত না তারা।

এবারের ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরবঙ্গের কোচবিহারে। মাংসের লোভ দেখিয়ে বাড়িতে ডেকে এনে এক পথ কুকুরকে এক যুবক! ঘটনাটি ঘটেছে কোচবিহার তল্লিতলা এলাকায়। স্থানীয় বাসিন্দাদের মতে, কুকুরটি মাঝে মাঝে খাবারের তারণায় ঢুকে পড়তে যুবকের বাড়িতে, এই কারণে প্রচন্ড পরিমানে বিরক্ত হতো সেই যুবক।শনিবার রাতে কুকুরটিকে মারার সিদ্ধান্ত নেয় যুবক। তাই মাংসের লোভ দেখিয়ে কুকুরটিকে প্রথমে বাড়ির মধ্যে ডেকে আনে সে। কুকুর টিও সামান্য খাদ্যের জন্য তার বাড়ির মধ্যে ঢুকে যায়।বাড়ির মধ্যে ঢুকতেই কুকুরটিকে সামান্য খেতে দেয় ওই যুবক। কুকুরটি যখন একমনে খাচ্ছিল, ঠিক তখনই একটি ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপ মারতে শুরু করে সে। যন্ত্রণায় চিৎকার করতে করতে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে কুকুরটি।

রক্তাক্ত অবস্থায় কুকুরটিকে রাস্তায় ফেলে চলে যায় যুবক।স্থানীয় বাসিন্দারা বিষয়টি জানতে পারার পরে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার খবর দেয়, সেখান থেকে সদস্যরা এসে কুকুরটিকে একটি পশু চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যায়। তবে একটাই ভালো খবর, গভীরভাবে আঘাত পেলে কুকুরটি বর্তমানে কিছুটা সুস্থ আছে। অভিযুক্ত যুবকের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এই ঘটনাতে এলাকার বাসিন্দারা ওই যুবকের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে আছে। ঘটনার পর থেকেই সেই যুবকটি পলাতক।

প্রচণ্ড যন্ত্রণায় চিৎকার করে ছটফট করতে থাকে কুকুরটি। সানি ও কয়েকজন বাসিন্দা মিলে কুকুরটিকে স্থানীয় ডাক্তারের কাছে নিয়ে যায়।তবে কুকুরটির পা আর তার দেহের সঙ্গে জোড়া যাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছেন চিকিৎসকরা। ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসায় এলাকার বহু মানুষ সরব হন ওই যুবকের বিরুদ্ধে। অভিযোগ দায়ের করা হলে গ্রেফতার করা হয়েছে অভিযুক্ত যুবক কে। কিন্তু কঠিন থেকে কঠিনতর শাস্তি হলেও যে কোন কিছু পাল্টাবে না তা এই ঘটনাগুলি চোখে আঙ্গুল দিয়ে বারবার দেখিয়ে দিচ্ছে।