ভারতের দা’বি’কে নস্যাৎ করে অ’ধি’কৃ’ত কাশ্মীরে নির্বাচনের ডা’ক পাকিস্তানের, ভোটগ্রহণ ২৫ জুলাই

ভারতের দাবি উপেক্ষা করেই পাক অধিকৃত কাশ্মীরে প্রাদেশিক নির্বাচন ঘোষণা করলো ইমরান খানের প্রশাসন। করোনা পরিস্থিতিতে নির্বাচন কিছুদিনের জন্য পিছিয়ে দেওয়ার আবেদন জানানো হয়েছিল পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে। তবে তিনি সেই কথায় কর্ণপাত করেননি। ইমরান খানের প্রশাসন আগামী ২৫শে জুলাই ভোটগ্রহণের দিন নির্ধারণ করেছে। এই মর্মে সম্প্রতি একটি ঘোষণাও করা হয়েছে।

মহামারীর পরিস্থিতিতে ভোট বন্ধ রাখার জন্য ইমরান খানকে আবেদন করেছিল বিভিন্ন মহল। তবে তিনি কারোর কথা শুনতে নারাজ। পাকিস্তানের প্রশাসনের তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, প্রাদেশিক নির্বাচনের জন্য ২১শে জুন পর্যন্ত নমিনেশন জমা দিতে পারবেন প্রার্থীরা। আগামী ৩রা জুলাই প্রার্থীদের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এর আগে করোনার মধ্যেই গিলগিট-বাল্টিস্তানে প্রাদেশিক নির্বাচন সম্পন্ন করেছিল পাকিস্তান। ভারত অবশ্য পাকিস্তানের এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছিল। নয়াদিল্লি তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয় যে, কেন্দ্রশাসিত জম্মু-কাশ্মীর, লাদাখ ও গলগিট-বাল্টিস্তান ভারতের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। তাই এই অঞ্চলের কোনরকম রাজনৈতিক স্বরূপ পরিবর্তন ভারতের তরফ থেকে মেনে নেওয়া হবে না। তবে তাতে অবশ্য কর্ণপাত করেননি ইমরান খান।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত বছর রাষ্ট্রসংঘের মানবাধিকার পরিষদের অধিবেশনে গিলগিট ও বাল্টিস্তান-সহ পাক অধিকৃত কাশ্মীরের মানুষের দুরবস্থা প্রসঙ্গে আন্তর্জাতিক মহলে সোচ্চার হয়ে উঠেছিল ওই অঞ্চলের মানবাধিকার কমিশন। সমাজকর্মী আমজাদ আয়ুব মির্জা আন্তর্জাতিক মহলে দাঁড়িয়ে দাবি করেছিলেন যে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের মানুষেরা স্বাধীনতা পেতে চান। গিলগিট ও বাল্টিস্তানের মানুষেরা দীর্ঘদিন ধরেই এই নিয়ে সংগ্রাম করে আসছেন। অথচ পাকিস্তান এই অঞ্চলের উপর থেকে নিজেদের অধিকার খর্ব হতে দিতে রাজি নয়।