করোনার আতঙ্ক, সাহায্যের জন্য ভারতের ডাক্তারের কাছে প্রার্থনা পাক নাগরিকের

গোটা বিশ্ব জুড়ে করোনা আতঙ্ক। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। করোনা মোকাবিলার জন্য বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশে লকডাউন চলছে। পাকিস্তানের ক্ষেত্রেও দৃশ্যটা একই। আর এই করোনা আতঙ্কের জেরেই এক পাকিস্তানি নাগরিক ভোপালের এল ডাক্তারের কাছে ফোন করে সাহায্য চাইলেন। ওই ডাক্তার ওই পাকিস্তানি নাগরিককে সাহায্য করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করলেন।

পাক সরকার জানিয়েছে, ধীরে ধীরে লকডাউন তুলে নেওয়া হবে। ব্যবসায়িক কাজ স্বাভাবিক করার জন্য এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছে পাক সরকার। কিন্তু সেই দেশে আক্রান্তের হার ক্রমশ বেড়েই চলছে। এই কারণেই পাকিস্তানের ওই নাগরিক ভোপালের ওই ডাক্তারের কাছে যোগাযোগ করেছেন। ওই ডাক্তারও প্রয়োজনমত ওই ব্যক্তির সাহায্য করেছেন। ৮ মে ডাঃ সত্যকান্ত ত্রিবেদী পাকিস্তানের নম্বর কোড থেকে একটি মেসেজ পেয়েছিলেন। তিনি পুনরায় ওই নম্বরে যোগাযোগ করেন।

তিনি জানতে পারেন পাকিস্তানের ৩৫ বছরের ওই ব্যক্তি করোনা মহামারী ঘোষণা করার পরেই স্কটল্যান্ড থেকে পাকিস্তানে ফিরেছিলেন। হাইপোকন্দ্রিসের রোগী ছিলেন তিনি। এই রোগে আক্রান্ত হলে সামান্য চোট আঘাত লাগলেও আক্রান্ত রোগী সেটিকে ভয়ানক গুরুতর বলে ভেবে নেন। পাকিস্তানে করোনা মহামারী এবং লকডাউনের কারণে আরও খারাপ অবস্থা।

ওই ডাক্তার জানিয়েছেন, নতুন টেলিমেডিসিন আইন অনুসারে এক দেশ থেকে অন্য দেশে প্রেসকিপশন করার কোন অনুমতি নেই, তাই তিনি তাঁকে পাকিস্তানের কিছু ডাক্তারের তালিকা তাঁকে দিয়েছিলেন, যাঁদের থেকে সাহায্য পেতে পারবেন তিনি। আশ্বাস দিয়েছিলেন কোনরকম সমস্যা হলে তিনি যেন তাঁকে পুনরায় ফোন করেন।