কৃষি বিল নিয়ে অসন্তোষ দেশজুড়ে, বিক্ষোভের পরিকল্পনা নিয়ে আসরে কংগ্রেস সমেত বিরোধীরা

বর্তমানে, কেন্দ্রের প্রস্তাবিত নতুন কৃষি বিল নিয়ে উত্তাল দেশ।বিরোধীদের প্রবল বিরোধিতার মধ্যেই রবিবার সংসদের বাদল অধিবেশনে রাজ্যসভায় কেন্দ্রের প্রস্তাবিত নতুন কৃষি বিলটি ধ্বনি ভোটে পাশ হয়ে গিয়েছে। এখন রাষ্ট্রপতি অনুমোদন মিললেই বিলটি আইনে পরিণত হবে। এই বিলটি নিয়ে বিরোধীদের মধ্যে বিতর্কের শেষ নেই। কংগ্রেস, তৃণমূল, আপ, সিপিএম দলের বহু সাংসদ এই বিলের বিরোধিতা করছেন। তাদের দাবি বিলটি আইনে পরিণত হলেন দেশের কৃষকরা প্রভূত সমস্যার সম্মুখীন হবেন।

কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী এই বিলটিকে সরাসরি “কৃষকদের জন্য মৃত্যুর পরোয়ানা” বলে মন্তব্য করেছেন। এই বিলের বিরোধিতা করে কংগ্রেস এবং ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়ন আগামী দিনে দেশজুড়ে ব্যাপক আন্দোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কংগ্রেসের তরফ থেকে ইতিমধ্যেই আগামী বৃহস্পতিবার জেলা স্তরে কৃষক আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন। বিভিন্ন জেলার কৃষকরা ঐদিন নতুন কৃষি বিল সম্পর্কে নিজেদের প্রতিবাদ জানিয়ে দেশজুড়ে বিক্ষোভ মিছিলে অংশগ্রহণ করবেন।

শুধু তাই নয়, শীঘ্রই নতুন কৃষি বিল প্রত্যাহার করার আবেদনের বয়ানে দেশের প্রায় দুই কোটি কৃষকের স্বাক্ষর যোগাড় করে তা রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানোর ব্যবস্থা করবে কংগ্রেস। আগামী, ১৪ই নভেম্বর, দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরুর জন্মদিন। ওইদিনই ভারতীয় কৃষকদের তরফ থেকে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রতিবাদ পত্র পাঠানো হবে বলে জানা গেছে। কংগ্রেস নেতা কে সি বেনুগোপাল জানালেন, আগামী ২রা অক্টোবর, মহাত্মা গান্ধীর জন্মদিনে কংগ্রেসের তরফ থেকে “কৃষক বাঁচাও, কৃষি মজুর বাঁচাও” দিবস পালন করা হবে।

ঐদিন দেশের প্রতিটি রাজ্য এবং জেলার সদর শহর গুলিতে অবিলম্বে কৃষি বিল প্রত্যাহার করার দাবি তুলে মিছিল এবং সমাবেশের আয়োজন করা হবে। ভারতীয় কিষান ইউনিয়নের নেতা রাকেশ টিকায়েত জানিয়েছেন, কৃষক সংগঠনের তরফ থেকেও আগামী শুক্রবার দেশজুড়ে প্রতিবাদ মিছিল বের করা হবে এবং পথ অবরোধ কর্মসূচি নেওয়া হবে। পাশাপাশি, অল ইন্ডিয়া কিষান সংঘর্ষ কো-অর্ডিনেশন কমিটির তরফ থেকেও ঐদিন বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দেওয়া হয়েছে।