বিয়ের দিনই প্রেমিককে নিয়ে পালালো কনে, শেষে বোনকে ঘরের বউ করে আনলো পাত্র

বিয়ে ঠিক আগে বর পালানো বা কনের পালানোর ঘটনা যেন নিত্যনৈমত্তিক ব্যাপার। কিন্তু এখন এই ঘটনায় কেউ ভেঙে পড়ে না।যত দিন যাচ্ছে মানুষ আরো বেশী অভ্যস্ত হয়ে পড়ছে এই ঘটনা গুলিতে। প্রতিনিয়ত মানুষ সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসার নিত্য নতুন পন্থা অবলম্বন করছে। এ রকমই একটি ঘটনা ঘটল উড়িষ্যা তে। বিয়ের দিন হঠাৎ করে বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে পালিয়ে গেল নববধূ।কিন্তু তারপরে যা হলো সেটি সকলকে চমকে দিয়েছে।

বিয়ের দিন করে পালিয়ে যাবার পর উপায় না পেয়ে কনের বোনের সঙ্গে বিয়ে হয়ে গেল বিয়ে করতে আসা পাত্রের। তবে যেহেতু কনের বয়স অনেকটাই কম, তাই ইতিমধ্যেই তাকে উদ্ধার করা হয়েছে শ্বশুরবাড়ি থেকে। গত মঙ্গলবার ওড়িশার কালাহান্ডি জেলার মালপাড়া গ্রামে সন্ধ্যেবেলা ঘটনাটি ঘটেছে। শোনা যাচ্ছে যে, বিয়েটি কিছুক্ষণ আগে বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে পালিয়ে যায় ২৬ বছরের কোনে।

নিরাশ হয়ে যখন বরযাত্রীরা বাড়ি ফিরে যাবার জন্য উদ্যোগ নিচ্ছেন ঠিক তখনই পাত্রীপক্ষের তরফ থেকে প্রস্তাব দেওয়া হয় যে, পাত্রীর বোনের সাথে তার বিয়ে দেবার। পাত্রপক্ষ সঙ্গে সঙ্গে সেই প্রস্তাবে রাজি হয়ে যায়। কনের ১৫ বছর বোনের সঙ্গে সঙ্গে সঙ্গে বিয়ে হয়ে যায় পাত্রের। তবে ঘটনাটি জানাজানি হয়ে যাবার পর জেলাশাসক উদ্যোগ নিয়ে শ্বশুরবাড়ি থেকে ফিরিয়ে নিয়ে আসে সদ্যবিবাহিতা নাবালিকাকে। এরপর তুলে দেওয়া হয় তার দাদার হাতে। নাবালিকা দশম শ্রেণির পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছিল।ইচ্ছে না থাকলেও বাবা মায়ের মুখের দিকে তাকিয়ে বিয়ের জন্য রাজি হয়েছিল সে।

এই বিয়ে যে অবৈধ তা নাকি পাথর এবং পাত্রীপক্ষ কেউ জানত না। প্রশাসনের তরফ থেকে ইতি মধ্যেই দুই সদস্যের মানুষদের নিয়ে কাউন্সেলিং এর ব্যবস্থা করা হয়েছিল। সেখানে একটি মিউচুয়াল সিদ্ধান্তে আসেন সকলে। যেহেতু এটি একটি দুর্ঘটনার কবলে সিদ্ধান্ত। নাবালিকা সাবালিকা হলেই তার বিয়ে দেওয়া হবে বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিয়ে হবে সেই পাত্রের সঙ্গে যার সাথে বিয়ে হয়েছে তার।