OMG: প্রসবের পর প্রসূতির মলদ্বার সেলাই করে দিলো চিকিৎসকরা, হুলুস্তুল কান্ড কৃষ্ণনগরে

প্রসবের পর প্রসূতির মলদ্বার পর্যন্ত সেলাই করে দিলেন চিকিৎসক! এমনই অদ্ভুত এবং মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে নদিয়ার কৃষ্ণনগর সদর হাসপাতালে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, সম্পূর্ণ ঘটনাটিই নাকি “ভুলবশত” ঘটেছে! এদিকে ঘটনার পর অবশ্য ওই প্রসূতিকে অস্ত্রোপচার করানো হয়েছে। আপাতত তিনি সুস্থই রয়েছেন। তবে ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল উঠছেই।

বিশিষ্ট সূত্রে খবর, বুধবার ভোরে প্রসব যন্ত্রণা উঠলে কৃষ্ণনগর সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন নদিয়ার ভীমপুরের শিমুলিয়ার এক প্রসূতি। স্বাভাবিক প্রসবের মাধ্যমে তিনি এক কন্যাসন্তানের জন্ম দেন। তবে কিছুক্ষণের মধ্যেই তিনি বেশ অসুস্থ হয়ে পড়েন। এই অসুস্থতার কারণ খতিয়ে দেখতে গিয়ে নজরে আসে ওই প্রসূতির মলদ্বার পর্যন্ত সেলাই করে দেওয়া হয়েছে! এই ঘটনার জেরেই অসহ্য যন্ত্রণায় ছটফট করতে থাকেন ওই তরুণী প্রসূতি।

ঘটনা নজরে আসতেই হাসপাতালের চিকিৎসকরা দ্রুত অস্ত্রপ্রচারের ব্যবস্থা করেন। তবে ওই অভিযুক্ত চিকিৎসক, যিনি ওই দিন প্রসবের দায়িত্বে ছিলেন, তাকে পরে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। প্রসূতির পরিবারের অভিযোগ, এস গুপ্ত নামক কর্তব্যরত এক চিকিৎসকের অধীনেই ওই প্রসূতি সন্তানের জন্ম দেন। স্বাভাবিকভাবেই এমন “ভুল” এর দায়ভার তার উপরেই ছেড়েছে প্রসূতির পরিবার।

এদিকে সংবাদমাধ্যমের তরফ থেকে ওই চিকিৎসককে ফোন করা হলে তিনি প্রথমটা সাফ জানিয়ে দেন, তিনি এ ব্যাপারে কিছু জানেন না! পাশাপাশি তিনি এই ঘটনার দায়ভার হাসপাতালের কর্তব্যরত সিস্টার অথবা নার্সের উপরেই ছেড়েছেন। ওই চিকিৎসকের সাফাই, সেলাইয়ের কাজ তার নয়। হাসপাতালের কর্তব্যরত নার্সরাই এই কাজ করে থাকেন। ওই প্রসূতিকে যেহেতু তার তত্ত্বাবধানেই ভর্তি ছিলেন, তাই পরিবারের তরফ থেকে তাকে দোষারোপ করা হচ্ছে।