অতিরিক্ত কোনো কিছুই ভালো না, অত্যাধিক স্যানিটাইজার হাতে মেখে কাজ, আগুনে ঝলসে গেলেন মহিলা

সবকিছুরই ভালো এবং খারাপ দুটি দিক আছে। কোন কিছুর সঠিক ব্যবহার না জেনে ব্যবহার করা উচিত নয়। যেমন করোনাভাইরাস এর প্রকপের কারণে বহু মানুষ এমন আছেন যারা বাড়িতে বসেও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করছেন।বারবার সাবধানতা অবলম্বন করার মানে এই নয় যে বাড়িতে থাকা কালিন হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে। বাইরে বের হলে অবশ্যই মাক্স পড়ে বের হতে হবে এবং সঙ্গে রাখতে হবে হ্যান্ড স্যানিটাইজার। কিন্তু মাক্স পড়ে বাইরে হাটা চলার মধ্যেও কিছু নিয়ম-কানুন মেনে চলতে হবে। মাক্স পড়ে দৌড়াদৌড়ি কিংবা জগিং করলে হতে পারে সমূহ বিপদ।এই মাক্স কিংবা হ্যান্ড স্যানিটাইজার এর সঠিক ব্যবহার না জানার ফলে সম্প্রতি একটি বড়সড় বিপদের সম্মুখীন হয়েছেন একজন মহিলা। আমরা সকলেই জানি করোনার হাত থেকে রক্ষা পেতে হলে আমাদের অ্যালকোহলযুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে।

কিন্তু এই অ্যালকোহলযুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার হাতে মেখে আগুনের কাজ শুরু করতে যাওয়ায় শরীরে একটা বড় অংশ পুড়ে গেছে এক মহিলার। আগুনে পুড়ে গিয়ে তার শরীরের অবস্থা দেখলে রীতিমতো ঘাবড়ে যেতে হবে।দুর্ঘটনাগ্রস্ত মহিলার নাম কেট ওয়াইস। তিনি স্যানিটাইজার দিয়ে নিজেকে পরিষ্কার করে গিয়েছিলেন নিজের সন্তানের বিছানার পাশের মোমবাতি জ্বালাতে। মোমবাতি জ্বালানোর সময় হঠাৎ করে আগুন ধরে গিয়েছিল তার হাতে। ঘটনার আকস্মিকতায় রীতিমত ভয় পেয়ে টেক্সাসের এই বাসিন্দা লাফিয়ে ওঠে, তাতে উল্টে যায় সামনে রাখা একটি মদের বোতল। বলাই বাহুল্য তাতেও ছিল যথেষ্ট পরিমাণে আলকোহল। আগুন লেগে বিস্ফোরণের মতো আওয়াজ হয়। সেই আওয়াজে উঠে পড়ে তার সন্তানেরা।

একজন সন্তানের সাহায্যে নিজের শরীর থেকে সমস্ত জামাকাপড় খুলে ফেলতে সক্ষম হন তিনি।আর এক সন্তান পাশের বাড়িতে দৌড়ে চলে যায় সাহায্যের আর্তি নিয়ে। সকলের প্রচেষ্টায় ঘটনাস্থলে জরুরী পরিষেবা কর্মীরা দ্রুত এসে উপস্থিত হয়ে সেই ভদ্র মহিলাকে নিয়ে যান স্থানীয় হাসপাতালে। চিকিৎসকরা কেটকে পরীক্ষা করে বলেন যে, কেটে র থার্ড অথবা সেকেন্ড ডিগ্রী বার্ন হয়েছে। অর্থাৎ তার সারা শরীরে কোথাও না কোথাও কোন না কোন অংশ পুড়ে গেছে।

সামান্য একটু সুস্থ হবার পর কেট জানিয়েছেন যে, প্রথম আগুনের ফুলকি তিনি শরীরে দেখতে পান হাতে, অর্থাৎ হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করার ফলেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।নিজে এবং সন্তানেরা করোনা আক্রান্ত হয়ে তারপর সুস্থ হয়ে যাবার পর এই হ্যান্ড স্যানিটাইজার কিনে এনেছিলেন কেট। যদিও কেট সুস্থ হয়ে গেলেও পুরোপুরি আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে রয়েছেন। তিনি বারবার সকলকে অনুরোধ করেছেন যে, খুব সাবধানে অ্যালকোহল জেল ব্যবহার করতে। বাড়িতে থাকলে সাবান ব্যবহার করা অনেক বুদ্ধিমানের কাজ বলে মনে করছেন তিনি। কেট সহ ডাক্তাররা বারবার বলেছেন যে, বাড়িতে থাকলে সাবান ব্যবহার করলে জীবাণু মরে এবং কোন প্রাণনাশের ঝুঁকি থাকে না।