কোনো খাবার বা’দ দিয়ে নয়! খেয়েই নি’য়’ন্ত্র’ণে রাখুন কোলেস্টেরল, কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা

বর্তমানে আমাদের আশেপাশে বহু মানুষ রক্তে অতিরিক্ত কোলেস্টেরল বেড়ে যাওয়ার কারণে চিন্তিত হয়ে থাকেন। এটি এমন একটি রোগ যার ফলে মানুষ খুব সহজে অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন এবং হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি বেড়ে যায়। খুব বুঝে শুনে যদি আপনি খাবার খান, তাহলেও কোলেস্টরেলের ঝুঁকি কমাতে পারবেন না আপনি।

তাহলে কিভাবে আপনি পাবেন কোলেস্টরল মুক্ত একটি জীবন? সঠিক ডায়েট এবং লাইফস্টাইল আপনাকে সুস্থ থাকতে সাহায্য করবে। অতিরিক্ত খাবার কমিয়ে নয় বরং সঠিক খাবার খেয়ে আপনি সুস্থ থাকতে পারবেন।

সঠিক খাবার: খাবারের তালিকায় কার্বোহাইড্রেটের পরিমাণ কমাতে হবে। ভাত রুটি কম খেয়ে খেতে হবে ভুট্টা, ওটস, বার্লি। কোলেস্টরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে এমন কিছু খাবার যেমন, কমলালেবু, স্ট্রবেরি পেয়ারা, ব্ল্যাকবেরি, বাঁধাকপি, কুমড়ো, ব্রকলি বেশি করে খেতে হবে। আমন্ড বাদাম আখরোট বেশি করে খেলে কোলেস্টেরল কমে যায়। এছাড়া সপ্তাহে একদিন মুরগির মাংস এবং ডিম খাওয়া উচিত। তাদের রেড মিট একেবারেই খাবেন না।

তেলে নিয়ন্ত্রণ: শরীরে কোলেস্টরল কমাতে রান্নায় তেলের ব্যবহারের ভীষণভাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। তাই রান্নার পদ্ধতি এবং তেল সঠিকভাবে ব্যবহার না করলে আপনার কোলেস্টেরল কমবে না কোনদিন। একবার কোন তেলে রান্না করার পর সেই তেলে পরে আর রান্না করা উচিত নয়। একই সঙ্গে সবরকম তেল মিশিয়ে খেলে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে থাকে।

নিজেকে নিয়ন্ত্রণ: চেষ্টা করবেন বাইরের খাবার কম খাওয়ার। শুকনো মুড়ি ছোলা জাতীয় খাবার বেশি খাবেন বাইরে গেলে। নিয়মিত হাঁটলে এবং সঠিক ডায়েট মানলে, চিন্তা মুক্ত জীবন যাপন করলে কোলেস্টরল অনেকটাই কমে যায়। এছাড়া কোলড্রিংস জাতীয় পানীয়, ভাজাভুজি, কেক, পেস্ট্রি, চকলেট, মিষ্টি, আইসক্রিম, এড়িয়ে চলতে হবে। এই সমস্ত খাদ্য শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা অতিরিক্ত বাড়িয়ে দেয়।