নতুন বছরে নয়া সিদ্ধান্ত, জেনে নিন কোন কোন রাজ্যে খুলছে স্কুল ও কলেজ, রয়েছে বিভিন্ন শর্ত

এখন নতুন বছর আর সেই কারণেই নতুন সব সিদ্ধান্ত। গতবছর করোনার কারণে একেবারে প্রথম থেকেই সমস্ত স্কুল-কলেজের পঠন-পাঠন বন্ধ ছিল। কিন্তু এই নতুন বছর থেকে এবার বিভিন্ন রাজ্যে স্কুল কলেজ খোলার চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। অবশ্য গত বছরের শেষের দিকে বিভিন্ন রাজ্য করোনার নিয়ম বিধি মেনেই স্কুল কলেজ খোলার অনুমতি দিয়েছে যার মধ্যে রয়েছে উত্তর প্রদেশ উত্তরাখণ্ড অন্ধপ্রদেশের মত রাজ্যগুলি। কিন্তু এই তালিকায় এবার নাম যুক্ত হতে চলেছে আরও কিছু রাজ্যের, অসম কর্ণাটক কেরলেও এবার খুলতে চলেছে স্কুল কলেজ। আজ পহেলা জানুয়ারি থেকেই এই সমস্ত রাজ্যে স্কুল কলেজ খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও, পরিস্থিতির ওপর বিবেচনা করে তারিখ পরিবর্তন হতে পারে।

আজ পহেলা জানুয়ারি থেকে কর্নাটকে ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত ক্লাস শুরু হবে তবে অবশ্যই সমস্ত পড়ুয়াদের নিজের অভিভাবকের লিখিত ছাড়পত্র নিয়ে তবেই স্কুলে আসতে হবে।এদিকে আবার রাজ্যের টেকনিক্যাল এ্যাডভাইজারী কমিটি একাদশ শ্রেণির ক্লাস শুরু হওয়ার কথা জানিয়েছে আগামী ১৫ জানুয়ারি থেকে তবে আপাতত সপ্তাহে দুই থেকে তিনদিন পঠন-পাঠন চলবে বলে জানা গেছে। আজ পহেলা জানুয়ারি থেকে একেবারে প্রাথমিক থেকে উচ্চ শিক্ষা স্তরে ক্লাস শুরু হচ্ছে অসমে।অবশ্য গত বছরের শেষের দিকেই ধাপে ধাপে স্কুল-কলেজ খোলা হয়েছে অসমে।

এদিকে আজ পহেলা জানুয়ারি থেকেই পঠন-পাঠন শুরু হবে কেরল রাজ্যে। অবশ্যই করোনার স্বাস্থ্য বিধি মেনেই এই পঠন-পাঠন চলবে আপাতত ৫০% পড়ুয়া নিয়েই শুরু হবে স্কুল কলেজ। আপাতত দশম ও দ্বাদশ শ্রেণীর ক্লাস শুরু হবে রাজ্যে।গতবছরের একেবারে প্রথম দিক থেকেই দেশে জারি হয়েছিল লকডাউন। আর সেই কারণেই দেশের সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দরজা বন্ধ ছিল তখন থেকেই। কিন্তু গত বছরের শেষের দিকে কেন্দ্রীয় সরকার পঠন-পাঠন চালু করার অনুমতি দিলেও সাথে যুক্ত করা হয়েছিল করোনার স্বাস্থ্যবিধি। আর সেই কথা মাথায় রেখেই বিভিন্ন রাজ্য সরকার পঠন-পাঠন চালু করেছে। তবে রাজ্যের তরফ থেকেও কেন্দ্রের স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবাইকে কাজ করার কথা বলা হয়েছে।

যার মধ্যে প্রথমেই রাখা হয়েছে তাদের অবশ্যই অভিভাবকদের ছাড়পত্র নিয়ে আসতে হবে, পঠন-পাঠন শুরু হওয়ার আগেই সমস্ত স্কুল স্যানিটাইজ করতে হবে।স্কুলের প্রবেশের মেইন গেটে প্রত্যেক পুরুষকে থার্মাল স্ক্রীনিং করতে হবে। শ্রেণিকক্ষে অবশ্যই ৫০ শতাংশের বেশি পড়ুয়ার উপস্থিতি থাকবে না। যেকোনো কনটেইনমেন্ট জোন থাকা কোন স্কুল খোলা যাবে না এমনকি স্কুলের মধ্যে কোন জমায়েত করা যাবে না।।