মঙ্গল অভিযান, প্রাণের অস্তিত্ব খুঁজতে আজই যাচ্ছে নাসার ” পারসিভিয়ারেন্স”

বৃহস্পতিবার ভারতীয় সময় বিকেল ৪টে ৫০ মিনিট নাগাদ ফ্লোরিডা থেকে মঙ্গলের উদ্দেশ্যে পাড়ি দিল নাসার মঙ্গলযান “পারসিভিয়ারেন্স”। “পারসিভিয়ারেন্স” মঙ্গলের মাটিতে পা রাখবে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে। মঙ্গল যান উৎক্ষেপণের সাক্ষী হতে বিজ্ঞানী এবং উৎসাহী মানুষজন ইতিমধ্যেই ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরালে উপস্থিত হয়েছেন।

মহাকাশ বিজ্ঞানীদের দাবি,”পারসিভিয়ারেন্স”এ পর্যন্ত সব থেকে উন্নত প্রযুক্তিতে বানানো মঙ্গলযান। নাসার উদ্যোগে বানানো আগের মঙ্গল যান “কিউরিওসিটি”র মধ্যে কিছু খামতি থেকে গিয়েছিল। সমস্ত ত্রুটি মিটিয়ে আবার নতুনভাবে সেজে উঠেছে “পারসিভিয়ারেন্স”। এর আগে যান্ত্রিক ত্রুটি থাকার কারণে তিনবার মহাকাশযানের যাত্রাপথে ব্যাঘাত ঘটে ছিল।

বিজ্ঞানীরা জানালেন,”পারসিভিয়ারেন্স” বহন করছে ২৩টি উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন ক্যামেরা, যা বিভিন্ন দিক থেকে মঙ্গলের ছবি তুলে পাঠাবে বিজ্ঞানীদের। পাশাপাশি, রয়েছে মাইক্রোফোন, যা মঙ্গলের আবহাওয়ার শব্দ পাঠাবে আমাদের। তার সাথেই রয়েছে অসংখ্য ছোটখাটো বৈজ্ঞানিক যন্ত্র, যেগুলি মঙ্গলের নিরক্ষীয় অঞ্চলে প্রাপ্ত বিভিন্ন নমুনার প্রাথমিক বিশ্লেষণ করে নাসায় পাঠাবে।

এই সম্পূর্ণ মঙ্গল অভিযানের নাম MastcamZ রেখেছে নাসা। মঙ্গল গ্রহের “জেজেরো ক্রেটর” হ্রদে জলের সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। বর্তমানে সেখানে পলিমাটি রয়েছে। “পারসিভিয়ারেন্স”এর জৈব বিশ্লেষণের ফলে সেখানে কোনো প্রাণের অস্তিত্ব আছে কিনা জানা যাবে। ফলে এবার লালগ্রহের গবেষণায় এক নতুন দিগন্ত খুলে যেতে চলেছে বিজ্ঞানীদের কাছে।