মিড ডে মিলের রান্নার সময় নেইল পলিশ, আংটি-চুড়ি কিছুই পরা চলবে না, নির্দেশ কেন্দ্রের

কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশিকা অনুসারে আগামী ১৫ই অক্টোবর থেকে দেশে ধাপে ধাপে স্কুল খুলতে চলেছে। স্কুল খোলার ক্ষেত্রে একাধিক নির্দেশিকা আরোপ করেছে কেন্দ্র। স্কুলের প্রত্যেক শিক্ষক, অশিক্ষক কর্মী এবং স্কুলপড়ুয়াদের নির্দিষ্ট স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এ সংক্রান্ত নির্দেশিকা আগেই প্রকাশ করেছিল কেন্দ্র। এবার দেশের স্কুলগুলিতে মিড-ডে-মিল পরিসেবার ক্ষেত্রেও একাধিক বিধি-নিষেধ আরোপ করা হলো।

সম্প্রতি, কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রকের তরফ থেকে স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর প্রকাশ করা হয়েছে। যেখানে স্কুলগুলিতে মিড ডে মিল পরিষেবা সংক্রান্ত একাধিক বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে। যেমন, মিড-ডে-মিল নেওয়ার সময় যাতে ভিড় না হয়, সেজন্য প্রতিটি স্কুলে মিড ডে মিল দেওয়ার সময়সীমা বাড়ানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজনে শ্রেণিকক্ষে খাবার দেওয়া যেতে পারে। তবে, রান্না করার সঙ্গে সঙ্গেই ছাত্র-ছাত্রীদের খেতে দিতে হবে। পাশাপাশি, রাঁধুনিদের জন্য বেশ কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করেছে কেন্দ্র।

রাধুনীরা এবার থেকে মিড-ডে-মিল রান্না করার সময় আংটি, চুড়ি, নেইল পলিশ পরে রান্না করতে পারবেন না। পাশাপাশি, প্রত্যেক মিড-ডে-মিল কর্মীকে মাস্ক পড়ে স্কুলে প্রবেশ করতে হবে। স্কুলে প্রবেশ করার আগে প্রত্যেকের থার্মাল স্ক্রীনিং হওয়া বাধ্যতামূলক। কেন্দ্রের কড়া নির্দেশ, প্রতিটি জেলা অথবা ব্লক প্রশাসনের দায়িত্ব থাকবে, মিড ডে মিলের রাধুনীরা যাতে করোনা আক্রান্ত না হন সেদিকে কড়া দৃষ্টি রাখা।

স্কুলে ঢোকার আগে প্রত্যেক মিড-ডে-মিল কর্মীকে একটি সেলফ ডিক্লেয়ারেশন পত্র জমা দিতে হবে, যেখানে প্রত্যেক কর্মী এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের সুস্থতার বিষয় উল্লেখ করা থাকবে। এবার থেকে প্রত্যেক মিড-ডে-মিল কর্মীকে অ্যাপ্রন এবং হেডগিয়ার ব্যবহার করে রান্না করতে হবে। রান্না করতে করতে থুতু ফেলা অথবা নাক ঝাড়া যাবেনা। মিড ডে মিলের আনাজ কাটার পর সেগুলিকে প্রথমে নুন-হলুদ অথবা ৫০ পিপিএম ক্লোরিনের মিশ্রণে রেখে তারপর পরিষ্কার জল দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে।