কথাও হলো, দেখাও হলো, তবে বিজেপিতে যেতে বলেননি মুকুল, মন খারাপ টিএমসি বিধায়কের

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের জন্য তৃণমূলের তরফ থেকে প্রার্থী তালিকা প্রকাশ পাওয়ার পর থেকেই তৃণমূলের অভ্যন্তরীণ গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব আরো বেশি করে প্রকাশ্যে আসছে। এই তালিকা থেকে যারা বাদ পড়েছেন তাদের মধ্যে অনেকেই দলের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে বিরোধী বিজেপি শিবিরের দিকে পা বাড়াতে আগ্রহী। এই তালিকায় রয়েছেন সোনালী গুহ, রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য, দীপেন্দু বিশ্বাস, জটু লাহিড়ী এবং আরো অনেকে।

তালিকায় রয়েছেন দক্ষিণ দিনাজপুরের তপন বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক বাচ্চু হাঁসদা। তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা থেকে বঞ্চিত হয়ে বাচ্চু বিজেপি শিবিরের অন্তর্ভুক্তই হতে চেয়েছিলেন। বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের সঙ্গে ইতিমধ্যে দেখাও করেছেন তিনি। তবে মুকুল রায় এই বিষয়ে এখনও পর্যন্ত তাকে কোন গ্রিন সিগন্যাল দেননি বলেই জানাচ্ছেন তপন বিধানসভা কেন্দ্রের প্রাক্তন বিধায়ক।

সংবাদমাধ্যমের কাছে তিনি জানিয়েছেন, পাঁচ মিনিট সময়ের মধ্যে তিনি বিজেপি নেতা মুকুল রায়কে দলের প্রতি তার অভিমানের কথা জানিয়েছেন। সবটাই শুনেছেন মুকুল। তবে দল পরিবর্তন প্রসঙ্গে এদিন তার সঙ্গে কোনো কথাই হয়নি। অর্থাৎ বিজেপি শিবিরের তরফ থেকে গ্রিন সিগন্যাল না পাওয়ার দরুন আপাতত তৃণমূল শিবিরেরই থাকতে হচ্ছে বাচ্চুকে।

প্রসঙ্গত, বাচ্চু হাঁসদার টিকিট পাওয়াকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক মহলে আগে থেকেই বহু জল্পনা ছিল। বিশেষত চলতি দফার বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের ভোট কৌশলী প্রশান্ত কিশোরও তার প্রতি বেশ খাপ্পাই ছিলেন। পিকের পরামর্শ অনুযায়ী কার্যত চলতি দফায় স্বচ্ছ ভাবমূর্তি সম্পন্ন ব্যক্তিত্বদেরই তৃণমূলের তরফ থেকে বিধানসভা নির্বাচনের প্রার্থী করা হয়েছে।