ভ্যা’ক’সি’ন নয় সাংসদ অভিনেত্রী মিমিকে দে’ও’য়া হ’য়ে’ছে পাউডার গো’লা জল, বেরিয়ে এলো চাঞ্চল্যকর ত’থ্য

এবার ভ্যাকসিন বিতর্কে নতুন এক তথ্য প্রকাশ্যে এলো। যে তথ্য কার্যত করোনা নিয়ে এবং করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে সাধারণের মনে আতঙ্ক বাড়িয়ে তুলেছে। এই ভ্যাকসিন বিতর্কের শিকার হতে হয়েছে খোদ তৃণমূল সাংসদ মিমি চক্রবর্তীকে। জাল ভ্যাকসিন নিয়েছেন মিমি। তার অজান্তেই তার শরীরে প্রবেশ করেছে পাউডার গোলা জল। ভ্যাকসিন বলে তার শরীরে যে বস্তু প্রবেশ করানো হয়েছে তা ঠিক কী বস্তু তা মিমি নিজেও জানেন না।

কসবার ভ্যাক্সিনেশন কেন্দ্রের এই জালিয়াতির অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কার্যত উত্তাল হয়ে উঠেছে ওই এলাকা। ওই জাল ভ্যাক্সিনেশন কেন্দ্র জাল ভ্যাকসিন নিয়েছেন বহু মানুষ। যে কারণে তাদের উদ্বেগ ক্রমশ বাড়ছে। ম্যানুফ্যাকচারিং ডেট, এক্সপায়ারি ডেট কিছুই ছিল না ভ্যাকসিন বলে দেওয়া ওই শিশির ভায়ালে! অথচ দিনের পর দিন বহু মানুষ ওই ভ্যাক্সিনেশন কেন্দ্র থেকে টাকার বিনিময়ে জাল ভ্যাকসিন নিয়েছেন।

জলের সঙ্গে পাউডার গুলে মিমি চক্রবর্তীসহ শয়ে শয়ে মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়ার নামে প্রতারণা করেছে ওই সংস্থা। পুরসভার তরফ থেকে তদন্ত করে জানা গিয়েছে যে ভ্যাকসিনের ওই ভায়ালে কোভিশিল্ড এবং কোভ্যাকসিন কোনটাই ছিল না। যে কারণে ভ্যাকসিন গ্রহীতাদের মনে আতঙ্ক আরও বাড়ছে। পুরসভার অভিযোগ, অনুমোদন ছাড়াই ভ্যাকসিনেশন ক্যাম্প চালাচ্ছিল ওই সংস্থা।

প্রসঙ্গত, এতদিন প্রশাসনের নজরের আড়ালেই কার্যত ভুয়ো IAS অফিসার পরিচয় দিয়ে দেবাঞ্জন দেব নামের অভিযুক্ত ব্যক্তি ভ্যাকসিনেশন প্রক্রিয়া চালিয়ে গিয়েছে। কলকাতা পুরসভার অনুমতি ছাড়াই এতদিন টিকাকরণ হচ্ছিল ১০৭ নম্বর ওয়ার্ডের ওই শিবিরে। যেখান থেকে ভ্যাকসিন নিয়েছেন বহু মানুষ। তারা প্রত্যেকেই এখন আতঙ্কে রয়েছেন।