দেশজুড়ে রাজনৈতিক নেতাদের বিরুদ্ধে ৪ হাজারের বেশি মামলা, বড় সিদ্ধান্ত নিল সুপ্রিম কোর্ট

বিগত বেশ কয়েক দশক ধরে রাজনৈতিক নেতা মন্ত্রীদের নানান অপরাধের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে আদালতে। বাড়তে বাড়তে সেই মামলার সংখ্যাটা আজ প্রায় সাড়ে চার হাজারের কাছাকাছিতে গিয়ে ঠেকেছে‌। তবুও সুবিচার পাননি মামলাকারী। রাজনৈতিক প্রভাব-প্রতিপত্তি খাটিয়ে বরাবরই পার পেয়ে গেছেন নেতারা। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ, আগামী দুই দিনের মধ্যে প্রতিটি রাজ্যের হাইকোর্ট যেন রাজনৈতিক নেতাদের বিরুদ্ধে জমে থাকা মামলার তালিকা প্রকাশ করে শীর্ষ আদালতে।

সম্প্রতি, বিশিষ্ট আইনজীবী এবং বিজেপি নেতা অশ্বিনী কুমার উপাধ্যায় সুপ্রিম কোর্টে একটি পিটিশন দাখিল করেন। তার দাবি ছিল, যেসকল রাজনৈতিক নেতারা অপরাধী সাব্যস্ত হয়েছেন, তাদের নির্বাচনে লড়াইয়ের ক্ষমতা যেন বাতিল করা হয়। এই মামলার শুনানির পরেই শীর্ষ আদালতের তরফ থেকে জানানো হয়, এ পর্যন্ত দেশের চব্বিশটি হাইকোর্টে প্রায় সাড়ে চার হাজারেরও বেশি মামলা রাজনৈতিক প্রভাবের তলায় চাপা পড়ে গেছে।

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুসারে আগামী ২ দিনের মধ্যে এই চব্বিশটি হাইকোর্ট যেন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের বিরুদ্ধে জমে থাকা মামলার তালিকা তৈরি করে অ্যামিকাস কিউরেইয়ি প্রবীণ আইনজীবী বিজয় হানসারিয়ার কাছে পেশ করে। এ সম্পর্কে বিজয় হানসারিয়ার পরামর্শ, প্রতিটি জেলায় বিশেষ আদালত গঠন করে রাজনৈতিক সাংসদ এবং বিধায়কদের বিরুদ্ধে জমে থাকা মামলাগুলির অবিলম্বে নিষ্পত্তি করা হোক।

উল্লেখ্য, শীর্ষ আদালতের তিন বিচারপতি এন ভি রামানা, সূর্য কান্ত এবং ঋষিকেশ রায় এদিন জানিয়েছেন, প্রাক্তন এবং বর্তমান রাজনৈতিক নেতাদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এ পর্যন্ত মোট ৪৪৪২টি কেস পেন্ডিং রয়েছে। এরমধ্যে আবার, ১৭৪টি কেসে অভিযুক্তের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে। ৩৫২টি মামলার ক্ষেত্রে আবার হাইকোর্ট এবং সুপ্রিম কোর্টে ট্রায়ালই বন্ধ হয়ে গেছে । কিছু কিছু মামলা ১৯৮১, ১৯৮৩ সাল থেকে পেন্ডিং পড়ে রয়েছে। এবার সেই মামলা গুলির তালিকা চেয়ে পাঠালো সুপ্রিম কোর্ট।