মোদির গুজরাটকে “মিনি পাকিস্তান” বলে কটাক্ষ, বড়ো বিপাকে পড়লেন সঞ্জয় রাউত

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ব্র্যান্ড গুজরাটকে “মিনি পাকিস্তান” হিসেবে সম্বোধন করে বেজয় বিপাকে পড়েছেন শিব সেনা প্রধান তথা রাজ্যসভার সাংসদ সঞ্জয় রাউত। গুজরাট সম্পর্কে সঞ্জয় রাউতের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তার সম্পর্কে তীব্র সমালোচনা করতে শুরু করেন বিজেপি কর্মী সমর্থকরা। পাশাপাশি, অবিলম্বে তাকে তার বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইতে হবে বলে দাবি জানাতে থাকেন বিজেপি নেতা-কর্মীরা। বিতর্কের সূত্রপাত, বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের রহস্য মৃত্যুকে কেন্দ্র করে। অপর এক জনপ্রিয় বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াত সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় বলেছিলেন, সুশান্তের মৃত্যুর পর থেকে মুম্বাইয়ে থাকতে তিনি ভয় পাচ্ছেন। তার বক্তব্য অনুসারে, মুম্বাই নাকি “পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীর” এর মতো হয়ে গেছে। কঙ্গনার এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিরোধিতা করেন সঞ্জয় রাউত।

কঙ্গনার বক্তব্যের প্রত্যুত্তোর দিতে গিয়ে সঞ্জয় রাউত গুজরাটের আহমেদাবাদে শহরটিকে “মিনি পাকিস্তান” বলে বসেন। এরপর থেকেই সঞ্জয় রাউতের বিরোধিতা করতে থাকে বিজেপি। গুজরাটের বিজেপি মুখপাত্র ভারত পান্ডিয়ার মতে, আহমেদাবাদকে পাকিস্তানের সাথে তুলনা করে গুজরাটের অপমান করেছেন শিবসেনা প্রধান। অবিলম্বে তাকে গুজরাট আহমেদাবাদ এবং আহমেদাবাদে বসবাসকারীদের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে।

তিনি আরো বলেছেন, গান্ধীজী এবং সর্দার বল্লভ ভাই প্যাটেলের শহর গুজরাট। অতীত এবং বর্তমান বিচার করলে গুজরাটের অবদান অপরিসীম। সর্দার প্যাটেল ৫৬২টি রাজ্য এক করে অখন্ড ভারত গঠন করেছিলেন। পাশাপাশি, জুনাগড় এবং হায়দ্রাবাদকে পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা করেছিলেন। শুধু তাই নয়, গুজরাট থেকেই উঠে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, যিনি উপত্যকা অঞ্চলের উপর থেকে ৩৭০ ধারা বাতিল করে সারা ভারতবর্ষকে এক সূত্রে বেঁধে রেখেছেন। তাই গুজরাট এবং গুজরাটের নেতাদের সম্পর্কে এই ধরনের বিরূপ মন্তব্য করা একেবারেই বাঞ্ছনীয় নয়।