লাদাখ সীমান্ত উত্তেজনা, তার মধ্যেই জিনপিংয়ের মুখোমুখি বসতে চলেছেন মোদী

বিগত বেশ কয়েক মাস ধরেই লাদাখে ভারত-চীন প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় উভয় প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর মধ্যে সীমান্ত বিতর্ক চলছে। গত কয়েক মাসে উভয় রাষ্ট্রের সেনা আধিকারিকেরা সীমান্তে শান্তি প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে দফায় দফায় আলোচনায় বসেছেন। কিন্তু এতে কোনো লাভ হয়নি। উভয় রাষ্ট্রের সেনাবাহিনী বর্তমানে একে অপরের দিকে বন্দুক উঁচিয়ে রয়েছে। ফলে, লাদাখে রীতিমতো যুদ্ধের পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।

লাদাখের সীমান্ত বিতর্ক সৃষ্টি হওয়ার পর এই প্রথমবারের মতো উভয় রাষ্ট্রের রাষ্ট্রপ্রধান অর্থাৎ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিংপিং একে অপরের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন। আগামী ১৭ নভেম্বর BRICS এর শীর্ষ সম্মেলনে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বৈঠকে বসতে চলেছেন তারা। সূত্রের খবর, এবারের BRICS এর শিখর সম্মেলনে সংগঠনের সদস্য দেশগুলির রাষ্ট্রনায়কেরা একে অপরের সাথে বন্ধুত্ব, আন্তর্জাতিক স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তার বিষয়ে আলোচনা করবেন।

আসন্ন বৈঠক সংক্রান্ত একটি বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, BRICS এর এই সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন পাঁচটি সদস্য দেশের রাষ্ট্রনায়কেরা। বৈঠকে শান্তি ও সুরক্ষা, অর্থনীতি এবং মানুষের মধ্যে সাংস্কৃতিক বিনিময় নিয়ে নিজেদের বক্তব্য রাখবেন তারা। পাশাপাশি, একে অপরের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে জীবন যাত্রার মানের উন্নয়ন ঘটানোর লক্ষ্যমাত্রা নিয়েই এই বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, করোনা মহামারীর কারণে এবার ভার্চুয়াল মাধ্যমে বৈঠকে অংশগ্রহণ করবেন রাষ্ট্রনেতারা। তবে অন্যান্য আলোচনার পাশাপাশি, এই বৈঠকে ভারত-চীন সীমান্ত বিতর্ক প্রসঙ্গও উঠবে বলে মনে করা হচ্ছে। সম্প্রতি, ভারতের বায়ুসেনা প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল রাকেশ কুমার সিং বাদুড়িয়া জানালেন, চীন এবং পাকিস্তানের মতো দ্বৈত শত্রুর বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য সর্বদাই প্রস্তুত ভারতীয় সেনা বাহিনী।