কূটনৈতিক চাল, চীনকে চাপে রাখতে জাপানের প্রধানমন্ত্রীকে ফোন মোদির

এবার ভারত যে কূটনৈতিক চাল চালছে, সেটা বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছে। কারন একটা কথা তো আছেই সোজা আঙ্গুলে ঘি না বের হলে, আঙুল বেকাতেই হয়। এবার যে ভারত সেই পথ গ্রহণ করেছে সেটা স্পষ্ট বুঝতে পারছে কূটনৈতিক মহল। কারণ ভারত এবার দল ভারী করার জন্যই বিভিন্ন চিন বিরোধী দেশ গুলোকে হাতে রাখতে চাইছে, আর এটাই নাকি কূটনৈতিক পদক্ষেপের একটি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী শিনজো আবের সাথে কথা বলেছেন টেলিফোনে, আর তাদের মধ্যে যে সব কথা বার্তা হয়েছে সেগুলো যে এই উত্তেজনা প্রশমনের বিষয় নিয়েই সেটা সূত্রের মাধ্যমে জানা গেছে।

আসলে জানা গেছে, ভারত ও জাপানের মধ্যে যে সব প্রতিরক্ষা চুক্তি হয়েছে, সেটাকে আরও গভীরতর করা সাথে নিওরাপত্তা ক্ষেত্রে এক সাথে কাজ করা ও ভারত প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে শান্তি বজায় রাখা। আসলে এই কোভিড পরিস্থিতিতে টেলি যোগাযোগের মাধ্যমেই সব কূটনৈতিক নীতি চালিয়েছে সাউথ ব্লক, কিন্তু এই মাত্রা আগের থেকে অনেকটাই বৃদ্ধি পেয়েছে। কারণ দেখা গেছে যবে থেকে চিনের মতো দেশ নিয়ন্ত্রন রেখায় উত্তেজনার সৃষ্টি করেছে, তার পর থেকেই কূটনৈতিক ভূমিকা বেড়েছে।

এবার শোনা যাচ্ছে চতুর্দেশীয় অক্ষের আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই দিল্লিতে ভার্চুয়াল বোঠক হতে চলেছে। চিন যে সব জায়গাতেই এখন অনেকটাই দাদাগিরি শুরু করেছে সেটা স্পষ্ট। আর সেটাকেই দমন করার জন্য অস্ট্রেলিয়া, জাপান ও আরও বন্ধু দেশের সাথে দফায় দফায় বৈঠক করে চলেছে, বিভিন্ন কুটনৈতিক পরিকল্পনা করে চলেছে।।