দেশের মধ্যে সবথেকে সুখী রাজ্য হলো মিজোরাম, রইলো কিছু কারণ

এর আগে আমাদের ভারতবর্ষে এই সমীক্ষা কখনো করা হয়নি। এই প্রথমবার দেশে সুখী রাজ্যের সমীক্ষা চালানো হলো এবং একটি তালিকাও তৈরি করা হলো। দেখা হল আমাদের দেশে কোন দেশ সব থেকে বেশি সুখী রাজ্য। এই সমীক্ষা চালানো কারণ হলো করোনা আবহের জন্য অনেক কিছুই উলটপালট হয়ে গেছে আমাদের জীবন। এর মধ্যে থেকেও কোন রাজ্য সবথেকে বেশি সুখী রয়েছে, ভালো রয়েছে এই কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে সেটা জানার জন্যই এই সমীক্ষা চালানো হয়।

কিন্তু এই সমীক্ষায় এক নজর বিহীন দেশকে সুখী রাজ্যে তকমা অর্জন করতে দেখা গেল। সেই রাজ্যটি হল মিজোরাম। কেউ ভাবতে পারিনি মিজোরাম কখনো সুখী রাজ্যের তকমা পেতে পারে। কারণ মিজোরামে সব সময় কিছু না কিছু নিয়ে সমস্যা, ঝামেলা লেগেই থাকে। মিজোরামে সবসময়ই ভূমিকম্প ও ধসের সমস্যা হয়েই থাকে। এছাড়াও এডস এর দিক থেকেও সব থেকে এগিয়ে এই রাজ্য। তারপরেও কি করে মিজোরাম সবথেকে সুখী রাজ্যের তকমা অর্জন করল তা অনেকেরই অজানা । মিজোরামকে সবথেকে সুখী রাজ্যের তকমা দেওয়ার কারণ হলো ভারতের এটি একটি মাত্র দেশ যেখানে করোনা এখনো পর্যন্ত কারো প্রাণ কেড়ে নিতে পারেনি।

সমীক্ষা অনুযায়ী প্রথম স্থানে রয়েছে মিজোরাম তারপর রয়েছে সিকিম ও অরুণাচল প্রদেশ। কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মধ্যে রয়েছে প্রথম স্থানে আন্দামান নিকোবর। রাজ্যগুলির মধ্যে প্রথম রয়েছে পঞ্জাব দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে গুজরাট এবং তৃতীয় স্থানে রয়েছে তেলেঙ্গানা। অবাক করার বিষয় হলো করোনার কারণে যেসব রাজ্যগুলো সবার আগে থাকে তারাই এখন পিছিয়ে পড়েছে। সেই রাজ্যগুলি হল হারিয়ান ওড়িশা, ছত্রিশগড়, হারিয়ানা। দিল্লি, মহারাষ্ট্র ছাড় পায়নি করোনার কারনে তারাও পিছিয়ে রয়েছে সুখী রাজ্যের তালিকা। পশ্চিমবঙ্গ রয়েছে সুখী রাজ্যের তালিকায় কুড়ি নম্বরে।

সমীক্ষাটি চালানো মার্চ মাস থেকে জুন মাস পর্যন্ত। সমীক্ষায় যেসব বিষয়ের উপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল, সেগুলি হল রোজকার শিক্ষা, বৈবাহিক অবস্থা ও বয়সের উপর। সমীক্ষায় আরেকটি তথ্য উঠে এসেছে যে, অবিবাহিতদের তুলনায় বিবাহিতরা মানুষেরা অনেক বেশি সুখী।