লাখ লাখ টা’কা জালিয়াতি, জে’লে যে’তে হ’লো মহাত্মা গান্ধীর প্রপৌত্রীকে

আর্থিক জালিয়াতির মামলায় অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে দোষী সাব্যস্ত হয়ে সাত বছরের জন্য কারাদণ্ড পেলেন গান্ধীজীর প্রপৌত্রী আশিস লতা রামগোবিন। ২০১৫ সালে এস আর মহারাজ নামের এক ব্যবসায়ীকে মিথ্যে কাগজপত্র দেখিয়ে এবং মিথ্যে কাহিনী শুনিয়ে তার থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে আশিস লতা রামগোবিনের বিরুদ্ধে। ওই ব্যবসায়ীর কাছ থেকে তিনি ৬.২ মিলিয়ন র‍্যান্ড (দক্ষিণ আফ্রিকার মুদ্রা) তথা ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৩.৩৩ কোটি টাকা ধার নিয়েছিলেন!

আর্থিক সঙ্কটে থাকার কারণ দেখিয়ে ওই ব্যবসায়ীর কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে ছিলেন তিনি। তিনি জানিয়েছিলেন যে ভারত থেকে আনানো সুতির কাপড় বন্দর থেকে ছাড়ানোর জন্য কয়েক কোটি টাকা প্রয়োজন তার। এই টাকা ধার নেওয়ার পর ওই ব্যবসায়ীকে লাভের অংশ থেকে একটি অংশ পাইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছিলেন তিনি। তাকে বিশ্বাস করেই অত টাকা দিয়েছিলেন ওই ব্যবসায়ী।

তবে আশিস লতা টাকা নেওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে তাকে যে কাগজপত্র দেখিয়েছিলেন, পরে সেই কাগজপত্র খতিয়ে দেখতে গিয়েই মাথায় হাত পড়ে ওই ব্যবসায়ীর। তিনি বুঝতে পারেন যে তাকে প্রতারণার শিকার হতে হয়েছে। গান্ধীজীর প্রপৌত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ নিয়ে তিনি আদালতের দ্বারস্থ হন। এতদিনে সেই মামলার রায় বেরোলো। মামলায় অভিযুক্ত হয়ে সাত বছরের জন্য কারাদণ্ড পেলেন আশিস লতা।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য আশিস লতা মহাত্মা গান্ধীর দ্বিতীয় ছেলে মনিলাল গান্ধীর মেয়ে এলা গান্ধীর মেয়ে। এলা গান্ধী দক্ষিণ আফ্রিকার একজন অত্যন্ত জনপ্রিয় সমাজকর্মী এবং প্রাক্তন সাংসদ হিসেবে পরিচিতা। তার মেয়ে আশিস লতার এমন কর্মকাণ্ডকে কেন্দ্র করে স্বভাবতই নেটদুনিয়ায় ছিছিক্কার পড়ে গিয়েছে।