দেশে PUBG নিষিদ্ধ, মানসিক অবসাদে আত্মঘাতী আইটিআই-এর ছাত্র

সম্প্রতি, ভারতের নিরাপত্তার স্বার্থে ১১৮টি অ্যাপ এর সাথে জনপ্রিয় গেমিং অ্যাপ “পাবজি” ব্যান করে দিয়েছে ভারত সরকার। হিসেব বলছে, এ দেশের প্রায় ১৭ কোটি গ্রাহক ছিল “পাবজি”র। গেমিং অ্যাপের নিরিখে, “পাবজি”র জনপ্রিয়তা ছিল তুঙ্গে। “পাবজি” বন্ধ হয়ে যাওয়ায়, মানসিক অবসাদের জেরে শুক্রবার গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করলো এক ছাত্র। ঘটনাটি ঘটেছে নদিয়ার চাকদাহ থানার পূর্ব লালপুর এলাকায়।

ওই ছাত্র কল্যাণী আইটিআইয়ের পড়ুয়া ছিলেন বলেই জানা যাচ্ছে। নাম প্রীতম হালদার, বয়স একুশ বছরের আশেপাশে। পুলিশ সূত্রে খবর, শুক্রবার মায়ের শাড়ি গলায় জড়িয়ে আত্মহত্যা করে ওই পড়ুয়া। এদিন দুপুর বেলা প্রীতমকে ঘরে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান তার মা। তার চিৎকার শুনেই ছুটে আসেন প্রতিবেশীরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় চাকদহ থানার পুলিশ। এবার তারা ওই ছাত্রের দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।

কি কারণে এভাবে হঠাৎ আত্মহত্যা করল প্রীতম, সে সম্বন্ধে তদন্ত করতে তার মায়ের সাথে কথা বলে পুলিশ। তিনি জানান, ঠিক কী কারণে আত্মহত্যা করেছে প্রীতম তা তিনি জানেন না। তবে তার ছেলের “পাবজি” খেলার প্রচন্ড নেশা ছিল। সরকার আচমকা সেই গেমিং অ্যাপ নিষিদ্ধ করে দেওয়ার পর থেকেই অবসাদে ভুগছিল প্রীতম। সে কারণেই হয়তো এই আত্মহত্যা, বলে মনে করছে তার পরিবার।

প্রসঙ্গত, লাদাখ সীমান্তে চিনা আগ্রাসনের পাল্টা চীনা পণ্য বয়কটের স্লোগান ওঠে ভারতে। একে একে চীনের সাথে একাধিক বাণিজ্য চুক্তি খারিজ করেছে ভারত। পাশাপাশি, ভারতীয় গ্রাহকের তথ্য চুরির অভিযোগে প্রথম দফায় ৫৯টি চীনা অ্যাপ বাতিল করার পর সম্প্রতি আরও ১১৮টি অ্যাপ বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্রীয় সরকার। যার মধ্যে ছিল “পাবজি”। প্রাথমিকভাবে পুলিশের অনুমান, “পাবজি”র প্রতি অতিরিক্ত মোহের কারণেই আত্মহত্যা করেছে প্রীতম। তবে এর পেছনে অন্য কোনো কারণ আছে কিনা সে সম্বন্ধে খতিয়ে দেখছে পুলিশ।