সাক্ষাৎ “দেবদূত”, প্রবল ঠান্ডায় কষ্টে থাকা অসহায় বৃদ্ধাদের পাশে সোনু সুদ

বর্তমান সময়ে আমাদের অনেক কিছু শিখিয়েছে। পর্দার খলনায়ক কে আমরা বাস্তব জীবনে নায়ক হতে দেখেছি। তাকে বিপদের সময় মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেখেছি। বহু মানুষকে সঞ্জিত অর্থ ব্যয় করে বাড়ি পৌঁছতে দেখেছি। হ্যাঁ কথা বলছি অভিনেতা সনু সুদ এর। যিনি মানবিকতার অন্যরূপ আমাদের দেখিয়েছেন। আরে একবার তার ভালবাসার অনন্য নজির দেখলাম আমরা। উত্তরপ্রদেশের মির্জাপুরের প্রায় কুড়িটি গ্রামের বৃদ্ধদের জন্য শীতবস্ত্রের জোগান দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেন অভিনেতা।সোশ্যাল মিডিয়ার দ্বারা এই গ্রামের মানুষের কষ্টের কথা জানার পর নিজে থেকেই এই উদ্যোগ নিলেন অভিনেতা।

বেশ কিছুদিন আগে বিকাশ দীক্ষিত নামে একজন ব্যক্তি অভিনেতাকে টুইট করে সমস্ত কথা জানান। সেখানে বিকাশ জানান যে, বেনারস থেকে কিছু দূরে মির্জাপুর এবং সনভাদ্র এর মধ্যে কয়টি গ্রাম এমন রয়েছে যেগুলো মূলত নকশাল অধ্যুষিত। এই গ্রামে প্রতি বছর শীতের কবলে পড়ে মৃত্যু হয় বহু মানুষের। ঠান্ডায় প্রতিবছর জেরবার হয়ে যায় তারা।

সেই মানুষদের পাশে এসে দাঁড়ানোর কথা জানালেন সনু সুদ।দেবদূতের মত এই সব দুঃখ মানুষদের দূর করার জন্য পদক্ষেপ নিলেন তিনি। টুইটে বিকাশ জানিয়েছিলেন যে, তাদের শেষ আশা একমাত্র সনু সুদ। এই বার্তা জানার পর জবাব দিয়েছিলেন বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা। তিনি বলেছিলেন যে, তিনি দ্রুত সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবার চেষ্টা করবেন। আর সেই গ্রামে কাউকে ঠান্ডায় কষ্ট পেতে হবে না। শীতের সমস্ত শীতবস্ত্র খুব শীগ্রই পৌঁছে যাবে তাদের কাছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কিছুদিন আগে মুক্তি পেয়েছে অভিনেতা লেখা নতুন বই আই এম নট দ্যা মসিহহা। নাম থেকে স্পষ্ট হয় যে, কোনভাবেই নিজেকে দেবতার আসনে বসাতে চান না অভিনেতা। শুধুমাত্র মানুষের পাশে অক্লান্ত পরিশ্রম করে সাহায্য করতে চান তিনি। কিন্তু তা বললে কি করে হবে, যে মানুষের পাশে তিনি দাঁড়িয়ে ছিলেন,তাদের কাছে তখন ভগবান বলতে একমাত্র ছিলেন সনু সুদ। সে সমস্ত দিন তাদের কাছে ছিল দুঃস্বপ্নের মতো। তাই তার প্রতি মানুষের মুগ্ধতা বেড়েছে বৈ কমেনি। ছেলের নামকরণ থেকে শুরু করে দোকানের নাম, সবেতেই হয়েছে অভিনেতার নাম। আর রয়েছে চারিদিকে অভিনেতা জয়জয়কার।