বালুচিস্তানে আছেন মাতা কালাটেশ্বরী, মাতাকে দেখে ভয় পায় পাকিস্তানিরাও

মৌলবাদী রাষ্ট্র পাকিস্তান। এই রাষ্ট্রের সংখ্যালঘুরা বিশেষত হিন্দুরা মৌলবাদীদের দৌরাত্ম্যে অত্যন্ত দুর্বিষহ জীবনযাপন করে থাকেন। পাক মৌলবাদীরা সেই রাষ্ট্রে সংখ্যালঘুদের ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলিকে নিশানা করে। ইতিপূর্বে বহু হিন্দু মন্দির, দেবদেবীর মূর্তি ভেঙেছে পাক মৌলবাদীরা। সেই ধ্বংসাবশেষের উপর গড়ে উঠেছে মসজিদ, হোটেল, পাঠাগার ইত্যাদি। এখনো সেই ধারা অব্যাহত।

তবে পাক অধিকৃত বালুচিস্তানে কিন্তু তেমন স্বেচ্ছাচারিতা চালাতে পারেনি পাক মৌলবাদীরা। পাকিস্তানের এই প্রদেশে কিন্তু আজও হিন্দুদের বহু দেবদেবী মূর্তি এবং মন্দির অক্ষত অবস্থায় রয়ে গিয়েছে। বালুচিস্তানের হিন্দু মুসলিম নির্বিশেষে এই মন্দিরের মহিমা সম্পর্কে অবগত। সেই প্রদেশের সংস্কৃতিতে জড়িয়ে রয়েছেন এই হিন্দু দেবদেবীরা।

এদের মধ্যে অন্যতম হলেন কালাটেশ্বরী কালী। ১৯৪৪ বছরের পুরনো এই কালী মায়ের মন্দির অবস্থান করছে বালুচিস্তানে। সেই প্রদেশের হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে কালাটে কালী মাকে জাগ্রত বলে মনে করেন। যে কারণে মৌলবাদীদের নজর থেকে বেঁচে গিয়েছে এই হিন্দু মন্দিরটি। প্রসঙ্গত, পাকিস্তানের অন্যান্য হিন্দু মন্দিরের মত এই মন্দিরটিও ধ্বংস করার প্রচেষ্টা চালিয়েছিল মৌলবাদীরা।

তবে প্রতিবার সেই প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। বিশেষত এই মন্দিরটিকে কেন্দ্র করে একটি প্রবাদও রয়েছে। স্থানীয়দের বিশ্বাস, মন্দিরটি যারাই ভাঙার চেষ্টা করেছেন তাদের অতি অল্প দিনের মধ্যেই কোনো না কোনোভাবে অপঘাতে মৃত্যু হয়েছে। তাই মৌলবাদীদের রাষ্ট্রে আজও অক্ষত অবস্থায় স্বমহিমায় বিরাজ করছেন হিন্দুদের এই দেবী।