মঙ্গলসূত্র নয়, একে অপরকে মাস্ক পরিয়ে বিবাহ সম্পন্ন, নবদম্পতির ভিডিও ভাইরাল

মাস্ক পরিয়ে বিবাহ সম্পন্ন

লকডাউন এর জেরে যাদের আগে থেকে বিয়ের দিন ঠিক করা ছিল তারা কোনভাবে মন্দিরে বা বাড়িতে বিয়ে সেরে ফেলেছেন। আর যাদের বিয়ে এখনো ঠিক হয়নি তারা এখনি বিয়ের কথা ভাবছেন না। আগামী এক বছর পর্যন্ত ৫০ জনের বেশি লোক নিমন্ত্রণ করে কোন অনুষ্ঠান করতে মানা করেছেন প্রশাসন। তাই ইচ্ছা থাকলেও ঘটা করে কোন অনুষ্ঠান করা যাবে না, তা বিয়ে হোক বা জন্মদিন। এই সময় যারা বিয়ে করছেন তারাও সমস্ত রকম সাবধানতা অবলম্বন করেই অনুষ্ঠান পালন করছেন।

বিয়ে বলতেই আমরা জানি সিঁদুর দান, অবাঙালি হলে মঙ্গলসূত্র। কিন্তু সময়টা এখন করোনার।তাই একে অপরের হাত ধরে সাত জন্ম চলার থেকে এ জন্মে একে অপরকে এই ভাইরাস থেকে মুক্ত রাখার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন নববিবাহিত দম্পতিরা। তেমনই একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ভাইরাল হওয়ার সাথে সাথে নেটিজেনদের প্রশংসাও কুড়িয়েছে ভিডিওটি।ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে মঙ্গলসূত্র পড়ানোর পরিবর্তে পরম যত্নে স্বামী মাক্স পরিয়ে দিচ্ছেন স্ত্রীকে।

ঘটনাটি ঘটেছে অসমে। অসমের এই নবদম্পতির মুখে ছিল সিল্কের মাক্স। সম্প্রতি আরেকটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে, মঙ্গলসূত্র পড়ানোর পরিবর্তে একে অপরকে মাক্স পরিয়ে দিচ্ছেন নবদম্পতিরা। করোনা আবহে এভাবে একে অপরকে মাস্ক পরিয়ে দেওয়া বা ভিডিও কলে একে অপরের সাথে অঙ্গীকার করা নতুন কিছু নয়। কিন্তু এইভাবে মঙ্গলসূত্রের পরিবর্তে একে অপরকে মাক্স পরিয়ে সারা জীবন একসাথে পথ চলার অঙ্গীকার সত্যিই অভাবনীয়। যাতে বোঝা যাচ্ছে যে তারা একে অপরের নিরাপত্তার জন্য কতটা চিন্তিত।

ভিডিওটি প্রচুর পরিমাণে ভাইরাল হয়েছে কারণ এই ভিডিওটিতে নেটিজেনদের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে তর্ক-বিতর্ক। অনেক নেটিজেনরা এই ভিডিওতে প্রশংসায় ভরিয়ে দিয়েছেন আবার অনেকে করেছেন সমালোচনা। কেউ কেউ বলেছেন মঙ্গলসূত্রের পরিবর্তে মাক্স পরিয়ে বিয়ে করার ডিজিটাল রীতিমত হাস্যকর। না তাহলে এবার সিঁদুর দানের পরিবর্তে দেওয়া হোক স্যানিটাইজার। তর্কবিতর্কের ফলে এই ভিডিওটি প্রচুর পরিমাণে ভাইরাল হয়েছে।প্রশংসা হোক বা সমালোচনা করুন আর প্রভাবেই নতুনভাবে বিবাহের প্রচলন তৈরি হলো। যতদিন করোনা থাকবে ততদিন এভাবেই বিবাহ হবে।