সীমান্তে ফের উত্তেজনা, প্যাংগং-এ বহু সেনা মোতায়েন ভারতের, চিনের সঙ্গে সংঘাতের আশঙ্কা!

ফাইল ছবি

সম্প্রতি লাদাখের প্যাংগং হ্রদের দক্ষিণ প্রান্তের মাধ্যমে ভারতীয় ভূখণ্ডে অনুপ্রবেশের চেষ্টা চালায় চীনা পিপলস লিবারেশন আর্মি। তবে ভারতীয় সেনা বাহিনীর তৎপরতায় তাদের ঠেকানো সম্ভব হয়েছে। চীনের এই কার্যকলাপের পর থেকেই সমগ্র উপত্যকা অঞ্চল জুড়ে কড়া প্রহরার ব্যবস্থা করেছে ভারতীয় সেনা। সমগ্র প্যাংগং এলাকা জুড়েই সশস্ত্র সেনাবাহিনী এবং যুদ্ধের অন্যান্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম মোতায়েন করছে ভারত।

উল্লেখ্য, ভারত-চীন সীমান্ত বিতর্কের আগেই লাদাখ সীমান্তে ভারতীয় বায়ুসেনাকে আরো মজবুত করে তুলতে টি-৯০ ভীষ্ম ট্যাঙ্ক মোতায়েন করেছিল ভারত। পরবর্তীকালে ভারতীয় ভূখণ্ডে চিনা আগ্রাসন রুখতে ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ১৪ থেকে ১৬ হাজার ফুট উচ্চতায় অবস্থিত উপত্যকা অঞ্চলে একে একে সুখোই, মিরাজ, মিগ-২৯ এর মতো যুদ্ধবিমান এবং অ্যাটাক হেলিকপ্টার ও সশস্ত্র হেরন ড্রোন মোতায়েন করেছে ভারত। পাশাপাশি ওই এলাকার সৈন্য সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে।

এদিকে, হাত গুটিয়ে বসে নেই চীনও। চীনের বায়ুসেনা ইতিমধ্যেই সীমান্তবর্তী অঞ্চলে রাশিয়ান প্রযুক্তিতে তৈরি অত্যাধুনিক এস-৩০০ ও এস-৪০০ এয়ার ওয়েপন সিস্টেম মোতায়েন করেছে বলে জানা গেছে। তবে লাদাখের প্রতিকূল পরিবেশে চীনের পক্ষে যুদ্ধ সরঞ্জাম একত্রিত করা বেশ কঠিন। অপরদিকে,পঞ্জাব, হরিয়ানা, কাশ্মীর, লেহ-সহ ভারতের একাধিক এয়ারবেস থেকে সহজেই যুদ্ধাস্ত্র সংগ্রহ করতে পারছে ভারত।

ভারতীয় সেনাবাহিনী সূত্রের খবর, চীনের প্রতিটি পদক্ষেপ আগে থেকে অনুমান করে সেই মতো যুদ্ধ কৌশল সাজাচ্ছে ভারত। উল্লেখ্য লাদাখ সীমান্তে যুদ্ধের অস্ত্র ভান্ডার ঢেলে সাজাচ্ছে ভারত। ইতিমধ্যেই সুখোই-৩০, মিরাজ-২০০০ ফাইটার জেট, মিগ-২৯ ফাইটার জেট এবং কমব্যাট ফাইটার জেট টহল দিচ্ছে লাদাখের আকাশে।আর কিছুদিনের মধ্যেই আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন সম্পন্ন হলে ফ্রান্সের রাফায়েল ফাইটার জেট গুলিকেও লাদাখ এয়ার বেসের অন্তর্ভুক্ত করা হবে।