বিজেপির নবান্ন অভিযান ঘিরে ধুন্ধুমার, জলকামানে গুরুতর অসুস্থ রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় সহ অনেকেই

বিজেপির নবান্ন অভিযানকে কেন্দ্র করে শহরের বুকে আজ যেন খন্ড যুদ্ধ বেধে গেল। পুলিশের প্রবল প্রতিরোধের মুখে পড়ে শেষমেষ গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লেন বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপির অভিযোগ, “সায়ন্তন বসুর নেতৃত্বে সাঁতরাগাছি থেকে কিছুটা এগোতেই পুলিশের বাধার মুখে পড়ে বিজেপির মিছিল। ওই মিছিলে অংশগ্রহণ করেছিলেন রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। পুলিশের ছোঁড়া কেমিক্যাল স্প্রে এবং জলকামানের মুখে পড়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন ওই বিজেপি কর্মী।

কেমিক্যাল স্প্রে এবং জলকামানের মুখে পড়েই রক্ত বমি শুরু হয়ে যায় তার। অবস্থা খারাপের দিকে যেতেই বিজেপি কর্মীরা তাকে বাইপাসের ধারের হাসপাতালে ভর্তি করেন।” রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও অসুস্থ হয়ে পড়েছেন তাপস ঘোষ। পাশাপাশি, পুলিশের প্রতিরোধের মুখে পড়ে অরবিন্দ মেনন, সায়ন্তন বসু ও জ্যোতির্ময় মাহাতো আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার বিজেপির ডাকে প্রায় ৫০ হাজার কর্মী সমর্থক শহরের বুকে চারটি মিছিলে অংশগ্রহণ করে নবান্ন অভিযানে বেরিয়েছিলেন।

তবে, বিজেপি কর্মীদের লাঠিচার্জ করে, জলকামান ছুঁড়ে সেই অভিজাত প্রতিহত করতে উদ্যত হয় রাজ্য পুলিশ। এদিকে, বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের নেতৃত্বে একটি মিছিল হাওড়া ব্রিজে উঠতেই পুলিশ বিজেপি নেতা কর্মীদের লক্ষ্য করে লাঠিচার্জ করতে শুরু করে। এতে স্বয়ং দিলীপ ঘোষ লাঠির আঘাতে মাটিতে পড়ে যান। পাশাপাশি মেশিন অংশগ্রহণকারী বেশ কয়েকজন কর্মী আহত হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দিলীপ ঘোষ।

হাওড়া ময়দানে আবার পুলিশের কিয়ক্স ভাঙচুর করেন বিজেপি কর্মীরা। সেখানে পুলিশকে লক্ষ্য করে বোমাবাজি হয়েছে বলে জানা গেছে। রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন বিজেপি কর্মীরা। খিদিরপুরে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের লক্ষ্য করে ইঁট ছোড়া হয়েছে বলে অভিযোগ। বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায় এর অভিযোগ, ইঁটের ঘায়ে বিজেপি নেতা রাকেশ সিংয়ের মাথা ফেটে গেছে। এদিকে বিজেপি’‌র রাজ্য সম্পাদিকা শর্বরীকে মারধোর করা এবং তার প্রতি পুলিশের অশ্লীল আচরণের অভিযোগে উত্তাল হয়ে ওঠে বিজেপি কর্মীরা। হাওড়া ময়দানে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট বৃষ্টি শুরু করেন তারা।