বামফ্রন্টের নীতি ভুল থাকলেও ভালো কাজও করেছে: শুভেন্দু

তৃণমূলের সদ্য দলত্যাগী নেতা শুভেন্দু অধিকারী এখন কার্যত প্রত্যেক রাজনৈতিক সভাতেই প্রাক্তন দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন। নন্দীগ্রাম দিবসে তমলুকে আয়োজিত জনসভাতেও কার্যত তার অন্যথা হয়নি। এদিনের জনসভায় তৃণমূলীয় নেতাকর্মীদের কার্যত তুলোধোনা করেছেন বিজেপির নবাগত সদস্য। তবে এদিনেই আবার সভামঞ্চ থেকে বামপন্থীদের ভুয়ষী প্রশংসায় ভাসালেন শুভেন্দু অধিকারী।

প্রাক্তন বামপন্থী সরকারের ভুয়ষী প্রশংসা করতে গিয়ে শুভেন্দু অধিকারী বলেছেন, বামপন্থীরা অনেক ভালো কাজ করেছে। তবে তাদের নীতিতে অবশ্য কিছু ভুল ছিল, এও স্বীকার করে নিয়েছেন তিনি। বৃহস্পতিবার বিকেলে তমলুকে আয়োজিত জনসভা এবং যোগদান মেলায় অংশগ্রহণ করে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, “বামেদের নীতিতে কিছু ভুল ছিল। তবে ওরা যে ভালো কাজগুলি করে গিয়েছে, তা আমরা কোনদিনও অস্বীকার করতে পারব না।”

বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য-সহ একাধিক বাম নেতার সম্পর্কে শুভেন্দু অধিকারীর বক্তব্য, ওঁরা স্বচ্ছভাবে রাজনীতি পরিচালনা করেছেন। একইসঙ্গে অবশ্য তৃণমূলকে আক্রমণ করতে ভোলেননি তিনি। তৃণমূল দলটিকে “প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি” হিসেবে উল্লেখ করে তার বক্তব্য, এই দলে কাজ করতে গেলে ক্রীতদাস হয়ে থাকতে হবে। যাদের আত্মসম্মান রয়েছে তারা কখনও এভাবে কাজ করতে পারবে না।

তৃণমূল দলের পাশাপাশি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কেও কটাক্ষ করেন শুভেন্দু অধিকারী। এদিনের সভা মঞ্চেও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে তোলাবাজি এবং দুর্নীতির অভিযোগ তোলেন তিনি। পাশাপাশি বীরভূমের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকেও একহাত নেন তিনি। শুধু তাই নয় রাজ্যের শিক্ষা মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের জন্যই রাজ্যের শিক্ষা ব্যবস্থার বেহাল দশা উৎপন্ন হয়েছে বলে মন্তব্য করেন শুভেন্দু অধিকারী।