ফাঁস হল দক্ষিণ ভারতের জঙ্গলে ইসলামিক স্টেটের ঘাঁটি তৈরির পরিকল্পনা

দক্ষিণ ভারতে সন্ত্রাসবাদি কার্যকলাপ চালানোর চেষ্টা চালাচ্ছে ইসলামিক স্টেট জঙ্গী সংগঠন! সম্প্রতি, এই চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ করলো জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা তথা এনআইএ। এন আই এর তরফ থেকে পাকিস্তানি জঙ্গী সংগঠনের সন্দেহভাজন ১৭ জন সদস্যের বিরুদ্ধে চার্জশিট পেশ করা হয়েছে বলেও জানা গেল। এনআইএর রিপোর্ট থেকে জানা গেল, দক্ষিণ ভারতের কর্ণাটক, কেরালা, তামিলনাড়ু এবং অন্ধপ্রদেশের গভীর জঙ্গলে গুলিতে ঘাঁটি গড়ে তোলার চেষ্টা চালাচ্ছিল জঙ্গিরা।

এন আই এর তরফ থেকে পেশ করা চার্জশিটের রিপোর্ট অনুযায়ী, বেঙ্গালুরুর জঙ্গি নেতা মেহবুব পাশা এবং তামিলনাড়ুর কুড্ডালোরে খাজা মইদিনের নেতৃত্বে জঙ্গিদের ২০ জন সদস্য দক্ষিণ ভারতের জঙ্গলে জঙ্গী ঘাঁটি গড়ে তুলেছিল। রিপোর্ট থেকে জানা গেল, ২০১৯সাল থেকেই দক্ষিণ ভারতে জঙ্গি ঘাঁটি গড়ে তোলার প্রস্তুতি শুরু করে দেয় পাকিস্তানি জঙ্গিরা। উদ্দেশ্য, ভারতে সন্ত্রাসবাদ ছড়ানো।

তবে তাদের সে পরিকল্পনা ব্যর্থ করে দিল এনআইএ। উদ্দেশ্য পূরণের আগেই তাদের কার্যকলাপ ফাঁস করে দিলো ভারতের তদন্তকারী দল। প্রশাসনিক সূত্রে খবর, দেশে এই প্রথম জাতীয় তদন্তকারী সংস্থার তৎপরতায় আইএসআইএস জঙ্গিদের এত বড় ষড়যন্ত্রের কথা প্রকাশ্যে এলো। পুলিশ সূত্রে খবর, সন্দেহভাজন ২০ জনের মধ্যেই ইতিমধ্যেই ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়েছে। বাকিদের খোঁজে জোর তল্লাশি চলছে।

এন আই এর রিপোর্ট অনুযায়ী, ২০১৯ সালে মেহেবুব পাশার নেতৃত্বে চার জন জঙ্গি কর্নাটকের শিবসমুদ্রম এলাকার জঙ্গলে জঙ্গী ঘাঁটি নির্মাণ করে। তাদের উদ্দেশ্য ছিল, ওই এলাকায় ভারতে প্রথম ইসলামিক স্টেটের মুক্তাঞ্চল বানানো। পাশাপাশি, আল হিন্দ জঙ্গিদের সন্ত্রাসবাদি কার্যকলাপের প্রশিক্ষণ দেওয়ার ব্যবস্থা করে ফেলেছিল তারা। ওই জঙ্গি ঘাঁটিতে তল্লাশি চালিয়ে পুলিশ তাবু, রেনকোট, দড়ি, ল্যাডার, স্লিপিং ব্যাগ, তির ধনুক, আগ্নেয়াস্ত্র ছুরি, কার্তুজ, জঙ্গলে চলার জন্য বিশেষ জুতোসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করেছে।