খানেদের চাপে সরে যেতে হয় বলিউড থেকে, প্রাক্তণ মিস ইন্ডিয়া হয়েও কেরিয়ার গড়তে অভিনয় বি-গ্রেড ছবিতে

১৯৬৪ সালের উনিশে ফেব্রুয়ারি দিল্লিতে এক পাঞ্জাবী পরিবারে জন্ম হয়েছিল তার। সনু ওয়ালিয়র, নামটা অনেকের কাছেই অচেনা হলেও তাকে এক ঝলক দেখলেই চোখের সামনে ভেসে উঠবে “খুন ভারি মাং”এর কিছু দৃশ্য।মনোবিজ্ঞান এবং সাংবাদিকতা নিয়ে পড়াশোনা শেষ করে অবশেষে মডেলিং শুরু করবেন বলে ঠিক করেছিলেন তিনি। তাই উচ্চতা এবং সৌন্দর্য তাকে খুব সহজেই সাফল্য এনে দেয়। নামী ডিজাইনারদের সঙ্গে কাজ করার পাশাপাশি বিজ্ঞাপনেও তাকে দেখা যেত নিয়মিত।শুধু মডেলিংয়েই সন্তুষ্ট না থেকে হাজার ১৯৮৫ সালের মিস ইন্ডিয়া প্রতিযোগিতায় নাম লিখে ফেলেন সনু। গতবছরের বিজয়ী জুহি চাওলা সোনুর মাথায় পরিয়ে দেন বিজয়ীর মুকুট।

এরপর মিস ইউনিভার্স প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করলেও জয়ী হতে পারেননি তিনি। কিন্তু ততদিনে বিভিন্ন ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে জায়গা করে নিতে পেরেছেন এই অভিনেত্রী।প্রথম ছবি “শর্ত” তেই নাসিরুদ্দিন শাহ,শাবানা আজমির মত নামী দামী শিল্পীদের সংস্পর্শে আসার সুযোগ হয় তার। এরপর তাকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। তার চলচ্চিত্র জীবনে সবথেকে উল্লেখযোগ্য সিনেমা হল রাকেশ রোশনের “খুন ভারি মাং”।এই সিনেমাটিতে সহ-অভিনেত্রীর ভূমিকা করে রেখার পাশাপাশি সমান প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন তিনি। এছাড়াও এই সিনেমাটিতে অসাধারণ অভিনয় করে ফিল্মফেয়ার পুরস্কার ও তিনি পান।

সেখান থেকে ‘আকর্ষণ’, ‘অপনা দেশ পরায়ে লোগ’, ‘মহাদেব’, ‘তুফান’, ‘মহা সংগ্রাম’, ‘তেজা’, ‘হাতিম হ্যায়’, ‘অগ্নিকাল’, ‘নম্বরি আদমি’, ‘খেল’, ‘হক’, ‘প্রতিকার’-এ মতো একাধিক ছবিতে দেখা যায় তাঁকে। তবে অনেকগুলি ছবির অফার পেলে ও সব ক’টি ছবিতে তার জায়গা ছিল সহ-অভিনেত্রী বা গ্ল্যামারাস চরিত্রে। কিছুতেই নিজের অভিনয় দক্ষতা প্রমানিত না করতে পেরে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছিলেন তিনি।এদিকে টাকার প্রয়োজন থাকার কারণে হাতের কাছে যা সিনেমা পাচ্ছিলেন সেটাই করতে শুরু করে দিচ্ছিলেন তিনি।

১৯৯২ সালে শাহরুখ খান এবং সালমান খানের সঙ্গে অভিনয় করেছিলেন তিনি।কিন্তু এরপর আস্তে আস্তে তার কাছে বড় ব্যানারের সিনেমা আসা বন্ধ হয়ে যায়। তখনকার সুপারস্টার গোবিন্দার সঙ্গে ও একাধিক কাজ তার হাত ছাড়া হয়ে যায়।পরবর্তীকালে এই কথা নিয়ে তাকে জিজ্ঞেস করায় তিনি বলেন যে, ভাগ্যের বা আমার অভিনয়ের কোন দোষ ছিলনা। তখন সব নায়কের থেকে আমার উচ্চতা ছিল অনেক বেশি। সেই কারণে হীনমন্যতায় ভুগে আমাকে একের পর এক ছবি থেকে বাদ দেয়া হয়।হাতের কাছে আর কোন সিনেমা না আপনি আর্থিক টানাটানি শুরু হওয়া বাদে অন্য কোন উপায় না দেখে বিগ্রেড ছবিতে অভিনয় করার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। এই সিদ্ধান্ত তাকে তার ক্যারিয়ার থেকে একেবারেই সরিয়ে দেয় চিরতরে।

এরপর তিনি মহাভারত কথা, বেতাল পচিশি নামে সিরিয়ালের অভিনয় করেন।ক্যারিয়ারে জায়গা না করতে পেরে আমেরিকা নিবাসী সূর্য প্রকাশ নামের এক ব্যবসায়ীকে বিয়ে করে বলিউড ইন্ডাস্ট্রি থেকে চিরতরে বিদায় নেয় সনু। কিন্তু বিয়ের কয়েক বছর পর সূর্য প্রকাশ এর মৃত্যু হয়। এরপর এক কন্যাকে নিয়ে প্রবাসী ভারতীয় চলচ্চিত্র নির্মাতা প্রতাপ সিংহ কে বিয়ে করে এই মুহূর্তে তিনি আমেরিকায় আছেন।

সব খবর সরাসরি পড়তে আমাদের WhatsApp  Telegram  Facebook Group যুক্ত হতে ক্লিক করুন