উত্তরপ্রদেশের দেখানো পথে “লাভ জেহাদ” রুখতে কড়া আইন প্রনয়ণ করবে কর্ণাটক, ঘোষণা বিজেপির

ভিন্ন জাতি-ধর্মে বৈবাহিক সূত্রে আবদ্ধ হওয়ার শর্ত স্বরূপ অনেক ক্ষেত্রেই মহিলারা নিজের ধর্মের পরিবর্তন করতে বাধ্য হন। এই ব্যবস্থা রুখতে এবার নতুন আইন আনতে চলেছে কর্ণাটক সরকার। দক্ষিণ ভারতে বিজেপির ইন-চার্জ তথা বিজেপির জাতীয় সাধারণ সম্পাদক সিটি রবি গত মঙ্গলবার এই ঘোষণা করেছেন। তিনি আরো জানিয়েছেন, লাভ-জিহাদে যারা জোর করে অন্যের ধর্মান্তকরণ করার চেষ্টা করবেন তাদের জন্য কড়া শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

উল্লেখ্য, ভিন্ন ধর্মের কোনো মহিলার সঙ্গে প্রেম সম্পর্কে জড়ানোর পর বৈবাহিক সূত্রে আবদ্ধ হওয়ার সময় সেই মহিলার জোর জবরদস্তি ধর্ম পরিবর্তনের ঘটনাকেই “লাভ জিহাদ” বলা হয়। বর্তমানে দেশের বিজেপি শাসিত বিভিন্ন রাজ্য যেমন উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানা, মধ্যপ্রদেশ, কর্ণাটক এই “লাভ জিহাদ” এর বিরুদ্ধে সরব হয়েছে। কড়া আইন এবং কঠোর শাস্তির বিনিময় জোরকরে ধর্মান্তরকরণ প্রক্রিয়া বন্ধ করতে চাইছে এই রাজ্যগুলি।

মঙ্গলবার একটি টুইট বার্তায় সিটি রবি জানান, এলাহাবাদ হাইকোর্টের নির্দেশের ভিত্তিতে বিয়ের জন্য জোর করে ধর্ম পরিবর্তনের বিরুদ্ধে শীঘ্রই নতুন আইন নিয়ে আসবে কর্ণাটক সরকার। তিনি আরো বলেছেন, জিহাদিরা দেশের মহিলাদের উপর অত্যাচার করলে, তাদের সম্মান নষ্ট করার চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নেবে প্রশাসন। উল্লেখ্য, মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খট্টার ও উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথও “লাভ জিহাদ” এর বিরুদ্ধে নতুন আইন আনার কথা ভাবছেন।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি হরিয়ানার বল্লভগড়ে এক যুবতীকে জোর করে ধর্ম পরিবর্তন করানোর চেষ্টা করা হয়। সেই যুবতী রাজি না হলে তাকে প্রকাশ্যেই গুলি করে খুন করা হয়। এরপর থেকেই বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলি একে একে লাভ জিহাদের বিরুদ্ধে সরব হতে থাকেন। বিজেপি শাসিত অসম রাজ্যের প্রশাসনের তরফ থেকে আবার লাভ জিহাদের শাস্তিস্বরূপ মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।