আইন না মানায় আদালতে হোঁচট খেলো কঙ্গনা, ভাঙা হতে পারে অভিনেত্রীর ফ্ল্যাট

সুশান্তের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে বার বার মুখ খুলতে শোনা যায় বলিউডের অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াতকে তার পরেই এক এক করে নানারকম হেনস্তা হতে থাকেন। সেপ্টেম্বর এর দিকে তার পালি হিলসের অফিসটি ভেঙে দেওয়া হয়েছিল এবং তার পরেই হাইকোর্টের কাছে মামলা করেছিল এইরকম একটি পদক্ষেপের বিরুদ্ধে। সুপ্রিমকোর্টের কাছে এই মামলাটি এখনো চলছে তবে এরই মধ্যে আবার প্রশ্ন উঠেছে অভিনেত্রীর একটি ফ্ল্যাট কে ঘিরে।

বিএমসি তার বাসস্থানে চালানো হতে পারে বুলডোজার এরকমই একটি ভয় নিয়ে তিনি আদালতে গিয়েছিলেন তবে এই আশঙ্কার আবেদনটি খারিজ করে দেওয়া হয়েছিল। আদালত জানায় যে কঙ্গনা তিনটি ফ্ল্যাট কে একত্রিত করেছে, যার জন্য তিনি আইন ভেঙেছেন। তবে সকালে কঙ্গনা টুইট করে এবং এই সমস্ত অভিযোগকে অস্বীকার করেছেন।

মহারাষ্ট্রের সরকারকে তিনি মহা বিনাশকারী বলেন এবং তিনি বলেন যে, “কোন ভাবে আমি কোন ফ্ল্যাটকে একত্রিত করিনি বিল্ডিংটা তৈরি করা হয়েছে ওইরকম ভাবে। এবং প্রত্যেকটি তলায় রয়েছে একটি করে অ্যাপার্টমেন্ট ঐ সমস্ত দেখেই কিনেছিলাম। ওই বিল্ডিং এর মধ্যে শুধুমাত্র আমাকে এই হয়রানি করে চলছে বিএমসি । আমাকে এইরকম হয়রানির করার জন্য আদালতে যাব।

১৭ই ডিসেম্বরের যখন এই আবেদন আদালতে ওঠে তখন মুম্বাইয়ের এক সিভিল আদালতের বিচারক এই আবেদন খারিজ করে দেন এবং তিনি বলেন যে,” কঙ্গনা ওই তিনটি ফ্ল্যাটকে একসঙ্গে জুড়েছেন এবং যার জন্য কোন কমন প্যাসেজ নেই তিনি অনেক পরিবর্তন করে ফেলেছেন ওই জায়গাটার বিল্ডিং এর প্ল্যান অনুমোদন করা হয়েছিল সেটা একেবারেই প্লান অনুযায়ী নেই, যেটা একদমই আইনের বিরুদ্ধে”।

এর পরেই ৩১ শে ডিসেম্বর নাগাদ আদালত যে রায় দেয় তার একটি কপি প্রকাশিত হয় এবং যার পরে প্রতিবাদ করে কঙ্গনা এই প্রতিবাদ করার প্রেক্ষিতে তিনি টুইট করে জানান যে, লড়াই তিনি জারি রেখেছেন। সুতরাং এই ফ্ল্যাট ভাঙ্গাকে কেন্দ্র করে যথেষ্ট সংঘাত তৈরি হয়েছে মহারাষ্ট্রের সরকারের সঙ্গে কঙ্গনার।