জনপ্রিয়তা তু’ঙ্গে উঠতেই থা’না পুলিশে জেরবার “কাকলি ফার্নিচার”, বে’জা’য় বি’র’ক্ত কর্ণধার

বেশ কয়েক দিন আগে একটি ভিডিও বা বলা ভাল একটি বিজ্ঞাপন সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়েছে। মুহুর্তের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে গিয়েছিল এই স্লোগান। নানাভাবে এই বিজ্ঞাপন কে নিয়ে হাসি ঠাট্টা করা হয়েছিল। তবে এই জনপ্রিয়তা এখন কাল হলো কাকলি ফার্নিচারের। থানা পুলিশ করে রীতিমতো জেরবার অবস্থা এই ফার্নিচারের কর্মকর্তাদের।

কিন্তু হঠাৎ করে এমন কি ঘটলো যার ফলে থানায় যেতে হচ্ছে তাকে? কাকলি ফার্নিচার নামে ওই দোকানের ফেসবুক পেজে পোস্ট করা হয়েছিল একটি বিজ্ঞাপনের ভিডিও। ভিডিওটি দেখতে পাওয়া গেছে যে, দোকানের সোফায় গদিতে লাফাচ্ছে দুটি বাচ্চা মেয়ে। ভিডিওর শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত শুনতে পাওয়া গেছে একটি ভয়েস ওভার যেখানে বলতে শোনা যাচ্ছে, দামে কম মানে ভালো কাকলি ফার্নিচার।

বাংলাদেশি ভিডিও এপার বাংলাতেও সমান আকারের ভাইরাল হয়ে যায়। এত জনপ্রিয়তা এখন প্রতিষ্ঠানের জন্য নিয়ে এলো খারাপ সময়। কাকলি ফার্নিচার জনপ্রিয় হওয়ার পরেই প্রতিষ্ঠানের নামে ফেসবুকে একাধিক ভুয়া আইডি পেজ তৈরি করা হয়েছে। এই দিনে কাকলি ফার্নিচার কতৃপক্ষ থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন। এই প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান সোহেল রানা গাজীপুরের শ্রীপুর মডেল থানাতে এই নিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগে সোহেল রানা জানিয়েছেন যে, অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তির আমার প্রতিষ্ঠানের নাম এবং লোগো ব্যবহার করে ফেসবুক আইডি এবং পেজ তৈরি করে যাচ্ছে। আমি নিশ্চিত আমার প্রতিষ্ঠানের জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে তারা এই কাজ করছে। তবে এই কাজ করার ফলে আমার প্রতিষ্ঠান সমূহ ক্ষতি হতে পারে বলে আশংকা করছি আমি।

শ্রীপুর মডেল থানা আধিকারিক খন্দকার ইমাম হোসেন জানিয়েছেন যে, অনেকেই ফেসবুকে কাকলি ফার্নিচার প্রতিষ্ঠানের নামে একাধিক আইডি তৈরি করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন কতৃপক্ষ। আমরা সাইবার টিমের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী ব্যবস্থা নিচ্ছি। তদন্ত করে আসল অপরাধীকে খুঁজে বার করা হবে। আপাতত দামে কম মানে ভালো কাকলি ফার্নিচার, নিজেই সম্পূর্ণ বিষয়টি নিয়ে বিব্রত হয়ে গেছেন।