এখনই মা হ’তে না’রা’জ কাজলের ছোটবোন তনিশা, নিজের “ডিম্বাণু” রা’খ’লে’ন সংরক্ষিত

নিজের মত করে জীবন কাটাতে গিয়ে এক বড়োসড়ো সিদ্ধান্তে উপনীত হলেন তানিশা, তার নিজের বক্তব্য প্রকাশ করলেন, বলা যায় একের পর এক বোমা বিস্ফোরণ ঘটালেন। কিন্তু অনেকের মনেই প্রশ্ন হতে পারে কে এই তানিশা তানিশা হলেন বলিউডের স্বনামধন্য নায়িকা কাজলের বোন, ও তনুজার ছোট মেয়ে।

তিনি যে বিয়ে নিয়ে একদমই ভাবছেন না তা তিনি স্পষ্ট করে দিলেন এদিন। এমনকি তিনি এখন এই মুহূর্তে মাতৃত্ব লাভ করতেও চাইছেন না। প্রেমের কোন সম্পর্কেও তিনি নিজেকে আবদ্ধ করতে চাইছেন না এই মুহূর্তে। একেবারেই নিজের মতো করে বোহেমিয়ান জীবন কাটাতে চাইছেন তিনি। নিজের মত করে বাঁচতে চাইছেন, জীবনকে উপভোগ করতে চাইছেন তানিশা।

তানিশাকে আমরা বলিউডের খুব বেশি মুভিতে দেখতে পাইনি, এক কথায় বলা যেতে পারে তার সিনেমার ক্যারিয়ার তাকে খুব একটা খ্যাতি দিতে পারেনি। তার করা কয়েকটি বইয়ের নাম হল নীল এন্ড নিকি ও রামগোপাল ভার্মার পরিচালিত সিনেমা সরকার ইত্যাদি। এছাড়া অনেক সিরিজ, বিজ্ঞাপনে তার মুখ দেখা গিয়েছিল। তবে খুব বেশী পপুলারিটি না পাওয়ায় তিনি এখন এই সমস্ত কিছুর থেকে দূরেই আছেন, তবে এর থেকেও একটি বড় সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি তার জীবনে।

৩৯ বছর বয়সে তিনি নিজের ডিম্বাণু সংরক্ষণ করে রেখেছেন যে বিষয়টিতে যথেষ্ট খুশি, অবশ্যই তিনি তাঁর চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়েই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, যদিও তার বাচ্চা খুবই ভালোলাগে কিন্তু তিনি মনে করেন শুধুমাত্র বংশ বৃদ্ধি করাযই মেয়েদের জীবনের একমাত্র লক্ষ্য হতে পারে না। তিনি তার দৃষ্টিভঙ্গি খুবই স্পষ্ট করে দিয়েছেন এদিন, জীবনের পথে যে একজন পুরুষ সঙ্গীকে প্রয়োজন এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই।

বর্তমান টেকনোলজির যুগে ও সাইন্স এতটাই উন্নত যে, আরও বিভিন্ন পদ্ধতিতে মাতৃত্ব সম্ভব। যেমন দত্তক নেওয়া যেতে পারে, কিন্তু এখন তানিশা মুখোপাধ্যায় আপাতত নিজের জীবনটা ঠিক নিজের মতো করে কাটাবেন ঠিক করেছেন। জীবনকে উপভোগ করতে চাইছেন তিনি, এহেন সিদ্ধান্ত নেওয়া যথেষ্টই শক্ত কিন্তু তবে এভাবেই যদি দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টাতে থাকে মেয়েদের, যুগ বদলাতে সময় নেবে না। আগামী মেয়েদের চিন্তাভাবনা আরো অনেকটা পাল্টে যাবে।