প্রতীক্ষার অবসান, বায়ুসেনার শক্তি বাড়াতে খুব শীঘ্রই রাফাল আসছে ভারতে, চাপে শত্রু রাষ্ট্র

লাদাখ সীমান্তে এখনো ভারতীয় ভূখণ্ড আগ্রাসন করার চেষ্টা চালাচ্ছে চীনাবাহিনী। গালওয়ান নদী উপত্যকায় ঘাঁটি গেড়ে ভারতের সীমানার মধ্যে নিজেদের মতো করে নির্মাণ কাজ চালাচ্ছে তারা। ভারতীয় স্যাটেলাইট এর আগেই ধরা পড়েছে সেই ছবি। এরপর থেকেই চীনের বিরুদ্ধে সচেতন হয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। এবার ফ্রান্স থেকে ৬ টি রাফাল যুদ্ধবিমান ভারতে আসবে। দিল্লির তরফ থেকে ফাইটার জেট কিনতে ফ্রান্সের কাছে বিশেষ অনুরোধ পাঠানো হয়েছিল। সেই অনুরোধ রেখে জুলাই মাসের শেষের দিকে যুদ্ধবিমান পাঠাবে ফ্রান্স।

২৭ শে জুলাই ফ্রান্সের ইস্টার কমিউন থেকে ভারতে এসে পৌঁছাবে ফাইটার জেট গুলি। এর সাথেই আসছে এয়ার টু এয়ার ক্ষেপণাস্ত্র “ম্যাটিওয়”এবং এয়ার লঞ্চড স্ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র “স্ক্যাল্প”। ফাইটার জেট গুলি ভারতে পৌছলে সেগুলি হরিয়ানার আম্বালা বায়ু সেনা ঘাঁটির ১৭ নম্বর “গোল্ডেন অ্যারো স্কোয়াড্রেন”এ রাখা হবে। আগস্ট মাস থেকে ব্যবহার করা যাবে যুদ্ধক্ষেত্রে।

গতবছর ৮ই অক্টোবর কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রীর ফ্রান্স সফরে ভারতের হাতে প্রথম রাফাল যুদ্ধবিমান টি তুলে দেয় দাসাউ অ্যাভিয়েশন। এর আগে অবশ্য UPA সরকারের জমানায় ১২৬ টি যুদ্ধবিমান কেনার কথা ছিল। ২০১৬ সালে ফ্রান্সের কাছে ৩৬ টি রাফাল ফাইটার জেট কিনতে আগ্রহী ছিল ভারত। কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে চাপের মুখে পড়ে প্রথমে চারটি যুদ্ধবিমানের আবেদন জানানো হয়েছিল। সীমান্ত পরিস্থিতি বিবেচনা করে আরো দুটো যুদ্ধবিমান চেয়েছে ভারত।

ইতিমধ্যেই ফ্রান্সের দাসাউ অ্যাভিয়েশন কোম্পানিতে ভারতের জন্য প্রস্তুত আছে দশটি রাফাল। তার মধ্যে ছটি ভারতে আসবে, এবং বাকি চারটিতে ভারতীয় পাইলটরা ফ্রান্সেই ট্রেনিং নেবেন। বর্তমান পরিস্থিতিতে সীমান্তে ভারত-চীন সংঘাত এবং কাশ্মীরের উত্তেজনা প্রশমনে ভারতের বায়ু সেনা বাহিনী আরো বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠলো রাফাল ফাইটার জেট হাতে পেয়ে।