বাহরিন ও আরবের সাথে চুক্তি, নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত হলেন ইজরায়েল প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু

দীর্ঘদিনের ঝগড়া মিটিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরশাহী এবং ইজরায়েলের মধ্যে চুক্তি হয় এবং এর জন্য নরওয়ের সাংসদ ক্রিশ্চিয়ান টাইব্রিং জিজেডে, আমেরিকার রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের নাম নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত করেছেন। এবার সংযুক্ত আরব আমিরশাহী এবং বাহরিনের সঙ্গে চুক্তি হয় এবং এর জন্য ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুনোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত হলেন। গত মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসে দুটি আরব দেশের বিদেশ মন্ত্রীর উপস্থিতিতে ইজরায়েলের সঙ্গে চুক্তি সাক্ষরিত হয়।বুধবার ইটালির নর্দান লিগ পার্টির সাংসদ পাওলো গ্রিমোলদি টুইট করে জানান, নেতানিয়াহুর নাম নোবেল শান্তি পুরস্কার এর জন্য মনোনীত করেছেন।

পাশাপাশি তিনি উল্লেখ করেছেন, দীর্ঘদিনের সমস্যা মিটিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরশাহি এবং বাহরিন এর সঙ্গে চুক্তি করার জন্য নেতানিয়াহুর নাম তিনি প্রস্তাব করেছেন। তিনি এও আশা প্রকাশ করেছেন যে, ঐতিহাসিক এই কাজের জন্য এই বছর আমেরিকার রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু যৌথভাবে নোবেল শান্তি পুরস্কার পাবেন। তিনি ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন এবং সৌদি আরবের সঙ্গে ইজরায়েলের চুক্তি রূপায়ণে মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালন করার আহ্বান জানিয়েছেন। এদিকে সৌদির সঙ্গে সম্পর্ক ভাল করার জন্য বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর প্রশংসাও করেছেন তিনি।

ফিনল্যান্ডের সাংসদরাও নোবেল শান্তি কমিটির কাছে জমা দেওয়া ইটালির সাংসদের প্রস্তাবে সমর্থন জানিয়েছেন। ফিনল্যান্ডের এক সাংসদ ভিলেম জুনিলা নোবেল শান্তি কমিটির কাছে পাঠানো তাঁর চিঠি টুইটারে পোস্ট করেছেন। সেই চিঠিতে তিনি লিখেছেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প, ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু এবং বাহরিনের সুলতান আল খালিফা শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য যে ঐতিহাসিক পদক্ষেপ নিয়েছেন, তাকে আন্তর্জাতিক মহলের স্বীকৃতি জানানো উচিত।