ডিমের কুসুম কি আপনার জ’ন্য ভা’লো না খা’রা’প? জানুন বিস্তারিত

অনেক মানুষ রয়েছে যারা ডিমের থেকে ডিমের কুসুম খেতে বেশি ভালোবাসেন। ডিম হলো এমন একটি জিনিস যেটি এখনো পর্যন্ত খুব সস্তায় বাজারে পাওয়া যায়। অর্থাৎ মধ্যবিত্তদের হাতের নাগালের মধ্যেই ৫ থেকে ৬ টাকার মধ্যে বাজারে আপনি ডিম পেয়ে যাবেন। তবে ডিমের কুসুম শরীরের জন্য ভালো নাকি খারাপ – সেই বিষয়ে অনেকেই চিন্তায় থাকেন।গবেষকদের মতে, শরীরের জন্য ডিমের সাদা অংশ খুবই উপকারী, কিন্তু ডিমের কুসুম শরীরের জন্য ক্ষতিকারক। কোনো মানুষ যদি অতিরিক্ত মাত্রায় ডিম খান তাহলে কিন্তু তার রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। অনেক গবেষণার মাধ্যমে এই তথ্য উঠে এসেছে যে ডিমের কুসুম খেলে নাকি হার্টের সমস্যা হতে পারে।

১৯৭৩ সালে আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ডিমের কুসুম খেলে রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে যেতে পারে। কিন্তু পরবর্তীকালে আরো গবেষণা করার পর এই তথ্যটি ভুল প্রমাণিত হয়। কারণ ডিমের কুসুমে রয়েছে ভিটামিন এ, ডি, ই, বি-১২ এবং কে। একইসাথে এর মধ্যে রয়েছে নানান ধরণের মিনারেল, যা শরীরের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

একটি পরীক্ষায় প্রমাণিত হয়েছে, একটি ডিমের মধ্যে কমপক্ষে ১৮৫ মিলিগ্রাম কোলেস্টেরল থাকে। এই খাবারের মধ্যে থাকা কোলেস্টেরল সবটা রক্তের ক্ষতি করে না। ক্ষতিকর কোলেস্টেরল প্রধানত আসে চিনি থেকে। কোনো মানুষ যদি কোলেস্টেরলের মত রোগে ভুগে থাকেন তাহলে তার মিষ্টি জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলাই শ্রেয়। বিজ্ঞানীদের মতে বরং ডিমের কুসুমে উপস্থিত ফ্যাট এই বাজে কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। তাই এইথেকে প্রমাণিত হলো ডিমের কুসুম মোটেই শরীরের জন্য ক্ষতিকারক নয়। তাহলে আজ থেকে ডিমের সাথে ডিমের কুসুম অবশ্যই খেতে হবে। ডিম খাওয়ার সময় কুসুম বাদ দেওয়ার আর কোনো দরকার নেই।