লকডাউন প্রত্যাহার হলেও শনিবার চলবে না পদাতিক এক্সপ্রেস, সমস্যায় পড়তে পারেন পরীক্ষার্থীরা

করোনা মহামারীর আবহেই চলতি সপ্তাহের রবিবার নিটের পরীক্ষার দিন ধার্য করা হয়েছে। ছাত্র-ছাত্রীরা যাতে পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছাতে হয়রানির শিকার না হোন সেই উদ্দেশ্যে শনিবার অর্থাৎ ১২ আগস্ট, পূর্বনির্ধারিত লকডাউন বাতিল করেছে রাজ্যসরকার। তবে লকডাউন বাতিল হলেও, যাতায়াতে অসুবিধার মুখে পড়েছেন উত্তরবঙ্গে পরীক্ষার সিট পড়া পরীক্ষার্থীরা। কারণ, শুক্র এবং শনিবার পদাতিক এক্সপ্রেস চলাচল করবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ।

পদাতিক এক্সপ্রেস হলো উত্তরবঙ্গগামী একমাত্র ট্রেন। রেল কর্তৃপক্ষ সূত্রে খবর, ডাউন লাইনে ট্রেন না আসায় ওই দুদিনের পদাতিক এক্সপ্রেস আগাম বাতিল করা হয়েছে। এদিকে, কলকাতা যে সকল পরীক্ষার্থীদের মালদা এবং শিলিগুড়িতে পরীক্ষার সিট পড়েছে তারা অনেকেই পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হতে পারছেন না। ফলে, শনিবার যাতে পদাতিক এক্সপ্রেস চালনা করা হয়, ছাত্র-ছাত্রীরা রেল কর্তৃপক্ষের কাছে এখন সেই আবেদনই রাখছেন।

এদিকে বৃহস্পতিবার লকডাউন ফলকনামা এক্সপ্রেস বাতিল হওয়ায় হাওড়ায় এসে আটকে পড়েন বহু শ্রমিক। অনেকেই একমাস আগে থেকে ফলকনামা এক্সপ্রেসের টিকিট কেটে রেখেছিলেন। তবে পরপর দুদিন ফলকনামা এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচল বন্ধ রাখে রেল। সেকেন্দ্রাবাদের শ্রমিকেরা অবশ্য এদিন জনশতাব্দি এক্সপ্রেস ধরেই বাড়ি ফেরেন। উল্লেখ্য, শনিবার যেহেতু লকডাউন বাতিল হয়েছে, তাই ঐদিন জন শতাব্দি এক্সপ্রেস চালু রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ।

পাশাপাশি,বহু পরিযায়ী শ্রমিক কর্মসংস্থানের আশায় রাজ্য ছেড়ে আবারও ভিন রাজ্যের উদ্দেশ্যে পাড়ি দিচ্ছেন। ফলে বুধবার রাতে, আপ যোধপুর এক্সপ্রেসে ব্যাপক ভিড়ভাট্টা সৃষ্টি হয়। সেই ভিড় সামলাতে রীতিমতো হিমশিম খান আরপিএফ। মুর্শিদাবাদ, নদিয়া থেকে বহু পরিযায়ী শ্রমিক কর্মস্থলে যোগ দিতে ঝাঁঝা, লাক্ষীসরাইয়ের উদ্দেশ্যে পাড়ি দিচ্ছেন। তাদের দাবি, পরিযায়ী শ্রমিক করে যাতে ভিন রাজ্যে তাদের কর্মস্থলে পৌছাতে পারেন, তার জন্য উপযুক্ত ট্রেন চলাচলের ব্যবস্থা করুক সরকার।