চিন থেকে সিল্কের সুতো আমদানিতে কোপ ভারতের, ফের বড় ধাক্কা খেল বেজিং

লাদাখে সীমান্ত সংঘাতের জেরে ইতিমধ্যেই চীনের সাথে বেশ কিছু বাণিজ্যচুক্তি খারিজ করেছে ভারত। এবার সেই তালিকায় উঠে এলো চীনের সিল্কের সুতো। প্রতিবছর চীন থেকে প্রচুর পরিমাণে সুতো আমদানি করে ভারত। তবে এবার থেকে আর, চীনের সিল্কের সূত্রের উপর নির্ভর করে থাকবে না ভারত। চীন থেকে সুতো আমদানির উপর বেশ কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করতে চলেছে ভারত সরকার। পাশাপাশি, সিল্কের সুতো যাতে ভারতেই তৈরি করা যায় সেদিকেও গুরুত্ব দিচ্ছে কেন্দ্র।

চলতি সপ্তাহের সোমবার, শ্রম সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকের আয়োজন করা হয়। এই বৈঠকের মাধ্যমেই কেন্দ্রের তরফ থেকে চীনা সিল্কের সুতোর ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করার কথা সরকারিভাবে ঘোষণা করা হয়। পাশাপাশি, এদিনের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর “আত্মনির্ভর ভারত” প্রকল্পের আওতায় দেশীয় পদ্ধতিতে উৎপাদিত তুলো এবং তা থেকে সিল্ক উৎপাদনের উপর জোর দেওয়া হয়েছে।

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম সিল্কের সুতা উৎপাদক দেশ হলো চীন এবং ভারত সব থেকে বৃহৎ আমদানিকারী রাষ্ট্র। অতএব, প্রতিবছর চীনের থেকে প্রচুর পরিমাণে সিল্কের সুতো কেনে ভারত। এমতাবস্থায় ভারত যদি নিজ রাষ্ট্রেই সিল্কের সুতো উৎপাদনের প্রতি গুরুত্ব দেয় এবং চীন থেকে সুতো আমদানিতে বিধিনিষেধ আরোপ করে, তাহলে স্বভাবতই চীনের অর্থনীতি আরো বড় ধাক্কা খাবে।

কেন্দ্রীয় সূত্রে খবর, আপাতত ভারতে উৎপাদিত সিল্কের সুতোর উৎপাদন এবং গুণমান বাড়ানোর চেষ্টা করছে ভারত। উল্লেখ্য, গত বছরের তুলনায় চলতি বছরে প্রায় ৩১ শতাংশ কম সুতো আমদানি করেছে ভারত। ভবিষ্যতে, সুতো আমদানি কমাতে কমাতে একেবারে তলানিতে পৌঁছে দিতে চায় কেন্দ্র। বিশ্বের অন্যতম সুতো আমদানিকারী দেশ থেকে, অদূর ভবিষ্যতে বিশ্বের অন্যতম সুতো উৎপাদক দেশে পরিণত হতে চায় ভারত।