লাদাখে নতুন করে সেনা বাড়াবে না ভারত ও চীন, বৈঠকে নেওয়া হলো সিদ্ধান্ত

ফাইল ছবি

এবার আর সীমান্তে সেনা বাড়াবে না দুই দেশ। গত সোমবারের বৈঠকে এই সিদ্ধান্তই নেওয়া হয়েছে। টানা ১৪ ঘন্টার বৈঠকে দুই দেশের কমান্ডার একেবারে সমস্যার গোড়ায় গিয়ে কথা বলেছে, তারা একেবারেই নাকি খোলামেলা কথা বলেছেন, এমনটাই জানা গেল সূত্রের মাধ্যমে। আর সেই বৈঠকের শেষেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে আর দুই দেশ সীমান্তে বৃদ্ধি করবে না সেনার সংখ্যা। তবে এখন যাতে উত্তেজনার প্রশমন ঘটে সেই কারণেই দুই দেশের মধ্যে যোগাযোগ বাড়ানো হবে, তাছাড়া দুই দেশের মধ্যে বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে খোলামেলা কথা বলা হবে। কিন্তু এখনও সীমান্তে সেনা সড়ানো নিয়ে কোনো ধরনের কথা হয়নি বলেই জানা যাচ্ছে।

কিন্তু সূত্রের মাধ্যমে জানা গেছে আসলে চুশুল থেকে ভারতীয় সেনা সরিয়ে নেওয়ার কথা জানিয়েছে চিন, এদিকে আবার ভারতের তরফ থেকে বলা হয়েছে তাহলে চিনা সেনা কেও প্যাংগং লেকের ফিঙ্গার ফোর থেকে ফিঙ্গার এইট পর্যন্ত জায়গা একেবারে ফাঁকা করার কথা । যেটা দুই দেশ একে অপরের কথা মানতে নারাজ। তবে গত কয়েকদিন আগেই চুশুলে গোলাগুলির আওয়াজ শোনা গেছে, যার ফলে ফের উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে,কিন্তু এই উত্তেজনা যাতে না বৃদ্ধি পায় সেটার কথা বলা হয়েছে ।

এদিকে মস্কোয় যে সাংহাই কোঅপারেশন অর্গানাইজেশনের বৈঠক হয়েছিল সেখানেও ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্করক এই কথাই জানিয়েছে চিনের বিদেশ মন্ত্রীকে। আর সেইটার প্রভাব এখানে কিছুটা হলেও পরবে বলে মনে করা হচ্ছে। তাদের মধ্যে ৫ দফায় বৈঠক হয়েছে। এদিকে বৈঠকে বলা হয়েছে লাদাখে অক্টোবর থেকেই শীত পরবে, আর তারফলেই সেখানকার তাপমাত্রা -২৫ ডিগ্রীর কাছে চলে যায়। তাই এই সময়ে এমন ভাবে সেনা মোতায়েন অনেকটাই ঝুঁকিপূর্ণ,কারণ সেখানে একেবারেই কমে যায় অক্সিজেনের পরিমাণ।তবে প্যাংগং লেকের উত্তর ও দক্ষিণ প্রান্ত সহ বিভিন্ন জায়গায় উত্তেজনা থাকায় শীতকালেও মোতায়েন করা হবে ভারতীয় সেনা।